প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় ঐক্যের নেতারা
প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য কাণ্ডজ্ঞানহীন, জনগণ জবাব দেবে

সাব্বির আহমেদ : ‘জাতীয় ঐক্যের নেতারা দুর্নীতিবাজ, তার মানুষ হত্যা কর‍তে চায়’ জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর এই মন্তব্যের জবাবে ঐক্য প্রক্রিয়ার নেতারা বলেছেন, জাতির সংকটকালে দেশের বাইরে প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়। উনার বক্তব্য দায়িত্বশীলতার পরিচয় বহন করে না। জনগণই প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের জবাব দেবে।

যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী কি বলতে চেয়েছেন? বি চৌধুরী দুর্নীতিবাজ? কামাল হোসেন দুর্নীতিবাজ? আ স ম আবদুর রব দুর্নীতিবাজ? মাহমুদুর রহমান মান্না দুর্নীতিবাজ? প্রধানমন্ত্রী যদি বিএনপির দুর্নীতির কথা বলে থাকেন তাহলে তারা জবাব দেবে।

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া কোন ষড়যন্ত্রে বিশ্বাস করে না মন্তব্য করে নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, প্রধানমন্ত্রী একটি গড়পড়তা কথা বলেছেন। জাতির এই ক্রান্তিকালে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়। দেশের বাইরে গিয়ে এমন মন্তব্য অংশগ্রহণমূলক নয়। আমরা হত্যাকাণ্ড করতে চাইলে কেন সভা সমাবেশে করছি।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেন, সময়মতো প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের জবাব দেওয়া হবে। কারা দুর্নীতিবাজ, দেশের জনগণ এটি জানে। জনগণ উনার মন্তব্যের জবাব দেবে।

তবে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহবায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড.কামাল হোসেন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তব্যের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দিতে রাজি হননি।

প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য কাণ্ডজ্ঞানহীন উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সরকার এখন দেশে বিরোধী পক্ষকে নিশ্চিহ্ন করার পরিস্থিতি তৈরি করেছে। দেশের দায়িত্বশীল একজন প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্য দায়িত্ব জ্ঞানহীন। এমন মন্তব্য উনার কাছ থেকে আশা করা যায় না।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার  মওদুদ আহমদ বলেন, আমি জাতীয় ঐক্যের উদ্যোক্তা নই, যোগ দিয়েছি মাত্র। তারা ঐক্য প্রক্রিয়ার নেতারা ভাল বলতে পারবেন। আর আমি প্রধানমন্ত্রীর কথার কোনো জবাব দেই না।

তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হক বলেন, উনি আমাদের দুর্নীতিবাজ বলেছেন; ভাল। ‘জামায়াত’ করি তা তো বলেননি। ৫ বছর বিনাভোটে ক্ষমতায় থেকে উনার তো অনেক সাহস হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী আমাদের এসব বলতেই পারেন। উনি আমাদের সততা প্রমাণ করেছেন। আমরা দুর্নীতিবাজ আর উনি একাই সাধু।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের শত্রুও নয় বন্ধুও নয়। উনি দেশে সুষ্ঠুভাবে ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা করলেই হয়। আমরা কারো পতন নয় পরিবর্তন চাই। আর উনার কোনো বক্তব্যই আমি গুরুত্বে নেই না।

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেন, গণতন্ত্রের জন্য যেকোনো আন্দোলনকে সরকার ‘ষড়যন্ত্র’ হিসেবে দেখে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনেও তাই করেছে। তারা সংকটকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দিতে চায়। কিন্তু জনগণ গণতান্ত্রিক অধিকার চায়। গণসংহতি কোনো জোটে নেই জানিয়ে সাকি বলেন, আমরা ঐক্য প্রক্রিয়ার সমাবেশে জাতীয় সমঝোতার কথা বলেছি। জাতীয় সংকট সমাধানে সংলাপের কথা বলেছি।

সরকারের পতন ঘটাতে দুর্নীতিবাজদের ঐক্য হয়েছে এখন জনগণ এই দুর্নীতিবাজদের ভোট দিলে দিবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশ সময় সোমবার নিউ ইয়র্কে প্রবাসীদের সংবর্ধনায় প্রধানমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

দুর্নীতিবাজ, ঘুষখোর ও হত্যা চেষ্টাকারীরা একজোট হয়ে তথাকথিত জাতীয় ঐক্য গড়ে, সরকারের পতন ঘটাতে চায় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, তারা ক্ষমতায় এলে দেশের সম্পদ লুটে খাবে। রোববার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় নিউইয়র্কে প্রবাসী

ভাষণে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, মানুষ শান্তিতে থাকলে বিএনপি অশান্তিতে থাকে। যুক্তফ্রন্টের নামে দুর্নীতিবাজরা এক হয়েছে। তিনি আরো বলেন, সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই আলোকচিত্রী শহিদুল আলম শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উসকানি দিয়েছিলেন।

গত শনিবার রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার লক্ষ্যে নাগরিক সমাবেশ হয়। সেখানে বিএনপি, বিকল্পধারা, জেএসডি, নাগরিক ঐক্যসহ কয়েকটি দল অংশ নেয়। সরকারবিরোধী এই ঐক্য নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা আলোচনা রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত