প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রীর রূপকল্প অনুযায়ী চলছে গ্যাস অনুসন্ধান : বাপেক্স এমডি

শাহীন চৌধুরী : রাষ্ট্রীয় তেল গ্যাস অনুসন্ধান কোম্পানি বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম রুহুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত রূপকল্প অনুযায়ী দেশে তেল গ্যাস অনুসন্ধানের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। তিনি বলেন, দেশে নতুন গ্যাস আবিস্কার ও উত্তোলনের ব্যাপারে শিগগিরই আমরা জাতিকে একটি সুসংবাদ দিতে পারবো। আমাদের সময় ডটকম এবং আমাদের অর্থনীতিকে দেয়া এক একান্ত সাক্ষাতকারে তিনি কথাগুলো বলেন।

রুহুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, কসবা, সালদা এবং চট্টগ্রামের সেমুতাং-এ গ্যাস উত্তোলনের কার্যক্রম চলছে অত্যান্ত দ্রুততার সাথে। কসবাতে ডিএসটি শেষ হয়ে গেছে। সালদাতে ডিএসটির জন্য প্রস্তুতি চলছে। আশাকরি এখানে গ্যাস পাওয়া যাবে। সেমতাং দক্ষিন-এ খনন অব্যাহত রয়েছে। সেখানে খননকালীন সময়ে গ্যাস-শো পরিলক্ষিত হয়েছে। ২০০৬ থেকে ৩ হাজার মিটার গভীরে যেতে হবে। ডিএসটি শেষ হলে নিশ্চিত এখানে গ্যাস পাওয়া যাবে।

এক প্রশ্নের জবাবে বাপেক্স এমডি বলেন, ২০১৯ সালের জুনের মধ্যে সরকারের কর্মসূচি অনুযায়ী শ্রীকাইল ইস্ট-এ অনুসন্ধান কুপ, মাদারগঞ্জ-১ এ অনুসন্ধান কুপ খনন করা হবে। একই সময় সেমুতাং দক্ষিণ, সালদা উত্তর-এ উন্নয়ন কুপও খনন করা হবে। বেগমগঞ্জ-৪ গ্যাস ক্ষেত্রের খনন কর্মসূচিও গৃহীত হয়েছে। আশাকরি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই এসব কাজ শেষ হবে।

অপর এক প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, ওয়ার্ক ওভার কর্মসূচির অংশ হিসেবে কৈলাশটিলা-১, তিতাস-৬, তিতাস-৭, তিতাস-১৩ এবং বাখরাবাদ-১ এই ৫টি গ্যাস ক্ষেত্রের ওয়ার্ক ওভার কর্মসূচি গৃহীত হয়েছে। এগুলোর কার্যক্রমও জুন-২০১৯-এর মধ্যে সম্পন্ন হবে। সাইসমিক সার্ভে সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বছরের জুন মাসে পাথারিয়া ভূ-গঠনের ৭০ কিলোমিটার ভূতাত্ত্বিক জরিপ শেষ হয়েছে। একই সঙ্গে সেমুতাং গ্যাস ক্ষেত্র এলাকার ২৫০ স্কায়ার কিলোমিটার ত্রিমাত্রিক জরিপ সম্পন্ন করা হয়েছে।

বাপেক্সের এমডি বলেন, উৎপাদন বন্টন চুক্তি (পিএসসি) অনুযায়ী যেসব ব্লকে আন্তর্জাতিক তেল কোম্পানিগুলো কাজ করছে সেখানকারও ১০ ভাগ করেড ওভার পার্টনার হিসেবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বাপেক্স। তিনি বলেন, আমি নিজে একজন জিয়োলজিস্ট এবং ২৮ বছর যাবৎ বাপেক্সে কাজ করছি সুতরাং আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি দেশে গ্যাসের কোনও সংকট থাকবে না।

ভোলাকে তিনি সম্ভাবনাময় গ্যাস ক্ষেত্র আখ্যা দিয়ে বলেন, সেখানে ইতিমধ্যেই প্রায় ২ টিসিএফ গ্যাস আবিস্কৃত হয়েছে। এর আশে পাশে ভালোভাবে অনসন্ধান চালালে আরও গ্যাস পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, ভোলার গ্যাস জাতীয় গ্রীডে যুক্ত হলেও আমাদের গ্যাস সংকট কেটে যাবে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের অপসর ব্লকে গ্যাস অনুসন্ধানের ব্যাপারে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত