প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

ঘুম ও মৃত্যুর প্রস্তুতি

শহীদুল ইসলাম: মানুষের জন্য মৃত্যু অবধারিত। যে মৃত্যুর মাধ্যমে আখিরাতের জীবনের সাথে সংযোগ স্থাপিত হয়। কিন্তু মৃত্যুর সদৃশ আরেকটি মৃত্যু রয়েছে। আর তা হলো ঘুম। হাদীসে বলা হয়েছে, ঘুম মৃত্যুর ভাই। বলা যায়,ঘুম হলো ছোট মৃত্যু।

আল-কুরআনে বলা হয়েছে ‘আল্লাহ জীবের রুহ কবজ করে নেন মৃত্যুর সময় এবং যাদের মৃত্যুর সময় আসেনি তাদের রুহও কবজ করেন তাদের নিদ্রকালে। অত:পর তিনি যাদের ব্যাপারে মৃত্যুর ফায়সালা করেছেন, তাদের রুহ রেখে দেন এবং অন্যদের রুহ পাঠিয়ে দেন এক নির্দিষ্ট সময়ের জন্য। নিশ্চয়ই এতে নিদর্শন রয়েছে তাদের জন্য যারা চিন্তা-ভাবনা করে। (যুমার-৪২)

ঘুমের মাঝেও অসংখ্য মানুষ মৃত্যু বরণ করে। তাই আমার শেষ বিদায় যদি কুরআন, সুন্নাহর নির্দেশিত পথে থেকে হয় তাহলে সেই মৃত্যু কতই না সৌভাগ্যের। তাই ঘুম সম্পর্কে ইসলামের শিক্ষা জেনে আমাদের তা মেনে চলতে হবে। নিম্নে তা তুলে ধরা হলো, ১. ঘুমানো ও জাগ্রত হওয়ার দোয়া পড়া; ঘুমুতে যাওয়ার সময় রাসুল সা. এই দোয়া পড়তেন, ‘বিসমিকা আল্লাহুম্মা আমুতু ওয়া আহইয়া।’ আর ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে এই দোয়া পড়তেন, ‘আল হামদুলিল্লাহিল্লাযি আহইয়ানা বা’দামা আমাতানা ওয়া ইলাইহিন নুশুর’। (বোখারি,)

২. শোয়ার পূর্বে বিছানা ঝাড়া বা পরিস্কার করা; লম্বা সময় বিছানা খালি থাকলে তা ময়লা হওয়া বা পোকা-মাকড় এসে রয়ে যাওয়া স্বাভাবিক। তাই পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা ও নিরাপত্তার বিবেচনায় শোয়ার পূর্বে বিছানা ঝাড়ার প্রতি যত্মবান হওয়া প্রয়োজন। এ ব্যপারে রাসুল সা. বলেন- ‘তোমাদের কেউ যখন বিছানায় ঘুমোতে যায়, তখন যেন বিছানা ঝেড়ে নেয়। কেননা, সে জানে না তার অনুপস্থিতিতে সেখানে কী রয়েছে। (বুখারি)

৩. ডান পার্শ ফিরে ঘুমানো; ডান দিক থেকে শুরু করা বা ডান দ্বারা শুরু করা ইসলামের একটি মৌলিক শিক্ষা। তাই ঘুমের ক্ষেত্রেও আদব হলো ডান পার্শ ফিরে ঘুমানো।

৪. অযু করে ঘুমানো; পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার দিক থেকেও তা অতি গুরুত্বপূর্ণ। উল্লেখিত দু’টি আদব সম্পর্কে রাসুল সা. হয়রত বারা রা. কে বলেন-‘যখন তুমি বিছানায় যাবে তখন নামাজের অযুর ন্যায় অযু করো। অত:পর ডান পার্শ ফিরে ঘুমাও।’ (বুখারি)

৫. ডান গালের নিচে ডান হাত রেখে ঘুমানো; এতে শরীর ও হাত উভয়ের ভারসাম্যতা বজায় থাকে এবং ঘুম, আরামের হয়। নাহয়, আনেক সময় হাতের রক্তচলাচলে ব্যঘাত ঘটে বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। এ ব্যপারে রাসুলের আমল বর্ণিত হয়েছে যে, শোয়ার সময় তিনি ডান হাতের তালু ডান গালের নিচে রাখতেন এবং বলতেন-‘রাব্বি ক্বিনি আযাবাকা ইয়াওমা তুবয়াছু ইবাদুকা’। (তিরমিযি)

৬. কমপক্ষে উভয় হাত ধৌত করে ঘুমানো; অযু করে ঘুমানো সম্ভব না হলে কমপক্ষে উভয় হাত ধৌত করা। কেননা, হাতে ময়লা, তেল, চর্বি লেগে থকতে পারে।এ ব্যপারে রাসুল সা. সতর্ক করে বলেন-‘ যে ব্যক্তি হাতে গোস্ত, চর্বি জাতিয় কোন বস্তু লেগে থাকা অবস্থায় ঘুমালো এরপর তার কোনো বিপদ আসলো সে যেন নিজেকেই তার জন্য তিরস্কার করে। (বোখারি)

৭. বাতি নিভিয়ে ঘুমানো; তাতে বিদ্যুৎ সাশ্রয় ও অপচয় রোধ হবে এবং ঘুমও হবে স্বস্তিদায়ক।

৮. পাত্র ঢেকে ও দরজা বন্ধ করে ঘুমানো; ঘুম থেকে উঠে উভয় হাত ধৌত করা; রাসুল সা. হাদিসেও তা করতে বলেছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত