প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নাটকে গানের প্রয়োজনীয়তা কতটুকু?

ডেস্ক রিপোর্ট : এই সময়ে অনেক একক নাটক-টেলিছবিতেই থাকছে জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পীদের গান। যে শিল্পী যত জনপ্রিয় তার গানের সেই নাটক-টেলিছবির ইউটিউবে ভিউয়ার্স তত বেশি হচ্ছে। গানকে উপজীব্য করেই অনেক নির্মাতা নাটক-টেলিছবি নির্মাণ করছেন বলে কেউ কেউ মন্তব্য করেন। গানের প্রয়োজনে নাটক নাকি গল্পের প্রয়োজনে নাটকে গান ব্যবহার হচ্ছে- এই প্রশ্ন এখন জোরালো হয়ে দেখা দিয়েছে। বর্তমান সময়ের নির্মাতাদের মধ্যে দেখা যায় গানের জনপ্রিয়তাকে পুঁজি করে নাটকের জনপ্রিয়তা বাড়াতে। একটা সময় অল্প সংখ্যক নাটকেই এই গানের ব্যবহার ছিল। একান্ত গল্পের প্রয়োজনে সেই গান ব্যবহার হতো। এখন অবস্থা তার বিপরীত।

গান ছাড়া নাটক ভাবাই যায় না। নাটকে গান থাকতেই হবে এমন একটি ট্রেন্ড চালু হয়ে গেছে। তবে এর বাইরে কেউ কেউ নাটক নির্মাণ করছেন। চলতি সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা অপূর্ব। তার অভিনীত নাটকগুলোতেও গানকে প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে। গত বছর তার অভিনীত ‘বড় ছেলে’ নাটকে ব্যবহৃত ‘তাই তোমার খেয়াল’ গানটি দর্শকের মধ্যে বেশ সাড়া ফেলে। এখনো এই গানটি শ্রোতাদের মুখে শোনা যায়। পরেও তার অনেক নাটকে গান পাওয়া গেছে। নাটকে গান ব্যবহার প্রসঙ্গে এই অভিনেতা বলেন, এই সময়ে নাটকে গান ব্যবহার দুটি কারণে হয়ে থাকে। তার একটি বাণিজ্যিক উদ্দেশ্য। অন্যটি গল্পের প্রয়োজনে। জনপ্রিয় শিল্পীদের গানের কারণে অনেক নাটক দর্শক দেখছেন। এটি আমাদের জন্য ভালো একটি দিক। আবার নাটকের গান আলাদা বাণিজ্যিকভাবে ইউটিউবে ব্যবহার করা হচ্ছে। সেখান থেকে আমরা শিল্পীরা কোনো লাভবান হচ্ছি না। সেখান থেকে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কিংবা ইউটিউব চ্যানেল কর্তৃপক্ষ ভেনিফিট নিচ্ছেন। এই বিষয়টি আমরা শিল্পীরা জেনেও কিছু বলছি না। কারণ, আমরা চাই আমাদের নাটক দর্শক দেখুক। আমাদের এই বাজারটি যখন আরো বিস্তৃত হবে তারপর নাটকে গানের ব্যবহার নিয়ে আমরা প্রযোজক-নির্মাতাদের সঙ্গে বসবো। এই সময়ে নাটকে গানের ব্যবহার নিয়ে ভিন্ন মত প্রকাশ করেন জনপ্রিয় নির্মাতা সাগর জাহান। তিনি বলেন, আমি নাটকে গান ব্যবহারের পক্ষে। তবে এখন নাটকে যে হারে গান ব্যবহার হচ্ছে তার পক্ষে আমি নই। কারণ, গল্পের প্রয়োজনে একটি নাটকে গান থাকতে পারে। গানের প্রয়োজনে কখনো নাটক হতে পারে না। এখন অনেক নির্মাতা গানকে কেন্দ্র করে নাটকের গল্প তৈরি করেন। এটি একজন নির্মাতার জন্য শোভনীয় নয়। গল্পের প্রয়োজনে যেমন ডিমান্ড করে তিনি তেমন গান ব্যবহার করলে নাটকটি অনেক বেশি মানসম্পন্ন হয়। কাছের মানুষেরা আমাকে বলেন কেন আমি নাটকে গান রাখি না। সত্যি বলতে আমিও নাটকে গান রাখি। কিন্তু ইউটিউবে বেশি ভিউয়ার্সের জন্য আমি নাটকে গান ব্যবহার করি না। আমার কাছে গল্পই আগে। এই সময়ের দর্শকপ্রিয় নির্মাতা মিজানুর রহমান আরিয়ান। তার প্রায় সব নাটকেই গান থাকে বলে জানান তিনি। এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, আমি দর্শকের জন্য নাটক নির্মাণ করি। দর্শক কী চায় আমাকে সেটি ভাবতে হবে। আমি এখন লাভ স্টোরি নিয়ে নাটক বেশি নির্মাণ করছি। এই ধরনের স্টোরিতে গান ডিমান্ড করে। আমি গল্পের সঙ্গে যায় এমন গান রাখি। এবারের ঈদুল আজহায় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিডি চয়েস ১৫টি একক ও ৭ পর্বের ১টি নাটক প্রযোজনা করেন। তাদের নাটকে গান রাখা প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার জহিরুল ইসলাম সোহেল বলেন, আমাদের নাটকে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে গান রাখা হয় ২৫%। আর বাকিটা রাখা হয় গল্পের প্রয়োজনে। কারণ, রোমান্টিক ও গল্পভিত্তিক নাটকে গান ডিমান্ড করে। ঈদে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ধ্রুব এন্টারটেইনমেন্ট ‘লালাই’ শিরোনামের একটি নাটক প্রযোজনা করে। এই নাটকে কণ্ঠশিল্পী সালমা ও তানজিব সারওয়ারের ‘পোড়া মন’ শিরোনামের একটি গান ব্যবহার করা হয়। নাটকটি প্রকাশের আগেই এটির মিউজিক ভিডিও প্রকাশ হয়। পরে এই গানটি নাটকে ব্যবহার প্রসঙ্গে ধ্রুব এন্টারটেইনমেন্টের কর্ণধার ধ্রুব গুহ বলেন, আমাদের একটি লক্ষ্য এই সময়ে শ্রোতাদের কাছে গানকে পৌঁছানো। নাটক সেই ক্ষেত্রে নতুন একটি প্ল্যাটফর্ম বলতে পারি। নাটকের গল্পের সঙ্গে সমন্বয় করে একটি গান ব্যবহার করলে গান ও নাটক দুটোই একই সঙ্গে দর্শক শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। তবে অবশ্যই আগে নাটকের গল্প। গানকে কেন্দ্র করে গল্প হতে পারে না। কেউ যদি কোনো গানকে কেন্দ্র করে নাটক নির্মাণ করে তাহলে আমি সেটির পক্ষে নই। নাটক সংশ্লিষ্টদের মতে এই সময়ে নাটকে অতিরঞ্জিতভাবে গান ব্যবহার হচ্ছে। কারণ এখন বেশির ভাগ নাটকে গানের ব্যবহার হচ্ছে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে। এই ক্ষেত্রে নাটকটির ভিউয়ার্স বেশি হচ্ছে। কিন্তু আমরা আমাদের নাটকের ঐতিহ্য হারাচ্ছি।
সূত্র : মানবজমিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত