প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইয়েমেনে গণহত্যা স্বত্বেও সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি করছে জার্মানি

নূর মাজিদ : জার্মান অর্থমন্ত্রী পিটার আলতেমেয়ার সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিয়েছেন। ইয়েমেনে সৌদি জোটের যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতাবিরোধী কার্যক্রমে সম্পৃক্ততা নিয়ে জাতিসংঘ প্রতিবেদন প্রকাশের পরেই এই অনুমোদন দিল জার্মান সরকার। গত বৃহস্পতিবার জার্মান অর্থমন্ত্রী এই অনুমোদন দেন। জার্মানির ডার স্পিগেল  অনলাইন ম্যাগাজিন জার্মান সরকার যেসব অস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে তার একটি তালিকা প্রকাশ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে সৌদি গোলন্দাজ বাহিনীর জন্য উন্নতমানের কামান, সাঁজোয়া যান এবং আরব আমিরাত ও জর্ডানের জন্য বিপুল পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র। এই সমস্ত অস্ত্রের কোনটিই অপ্রচলিত নয়, বরং যুদ্ধক্ষেত্রের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত। ইয়েমেনে সৌদি জোটের প্রচলিত অস্ত্র ব্যবহারেই প্রাণ হারিয়েছেন লাখো সাধারণ মানুষ।

বর্তমানে সৌদি জোটের অংশ হিসেবে এই তিনটি দেশই ইয়েমেনের বিরুদ্ধে আগ্রাসী যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে। এই অস্ত্র রপ্তানির সিদ্ধান্ত নিয়ে জার্মানি তার সংবিধানের মানবাধিকার সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতাও লঙ্ঘন করেছে। ইতোপূর্বে, জার্মানির সংসদ সদস্যদের বিরোধিতার মুখে ইয়েমেন যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর কাছে অস্ত্র বিক্রয় স্থগিত করেছিল এঙ্গেলা মের্কেলের সরকার। তবে সাম্প্রতিক ঘোষণার মধ্যে দিয়ে নিজেদের অবস্থান থেকে সরে এলো জার্মান সরকার। তবে তারা চুক্তিটির মোট আর্থিক মূল্য প্রকাশ করেনি।

এদিকে প্রচলিত অস্ত্রের পাশাপাশি আরব আমিরাতের নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজগুলোর জন্য ৯১টি মিসাইল এবং ৪৮টি বিস্ফোরকমুখ বা ওয়ারহেড বিক্রি করছে জার্মানি। আরব আমিরাত যুদ্ধজাহাজ থেকে ইয়েমেনে ক্রমাগত মিসাইল হামলা চালিয়ে আসছে। এছাড়াও তারা দেশটিতে সমুদ্রপথে মানবিক সাহায্য আসার সকল পথ অবরুদ্ধ করে রেখেছে। জাতিসংঘের সর্বশেষ ইয়েমেন বিষয়ক প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে সৌদি জোটের অবরোধের কারণে ইয়েমেনে অর্ধকোটি শিশু তীব্র অনাহার ও অপুষ্টির কারণে মৃত্যুঝুঁকিতে রয়েছে। ডার স্পিগেল/ ফোর্ট রাস

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ