প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এখনও প্রকাশ হয়নি বাংলাদেশ ব্যাংকের স্বর্ণ কেলেঙ্কারীর তদন্ত প্রতিবেদন

আদম মালেক : এখনও প্রকাশ হয়নি বাংলাদেশ ব্যাংকের স্বর্ণ কেলেঙ্কারীর তদন্ত প্রতিবেদন। প্রতিবেদন জমা দেয়ার সময় ২ বার পেছালেও তদন্তের অগ্রগতি সন্তোষজনক নয়। এই গড়িমসির কারণে জনমনে যেমন অসন্তোষ তেমনি বিব্রত বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তারা। প্রশ্নবিদ্ধ বাংলাদেশ ব্যাংকের ভাবমূর্তি।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মূখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ হবে। শিগগিরই প্রকাশ হবে। ৫/৭ দিন সময় লাগতে পারে। কমিটির সদস্যরা ব্যস্ত থাকায় প্রতিবেদন প্রকাশে বিলম্ব হচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক গঠিত তদন্ত কমিটির কার্যক্রম সম্পর্কে জানা যায়, শুধু স্বর্ণ পরিমাপে আধুনিক যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তদন্ত কমিটির যোগাযোগ ঘটেছে। এর বাইরে কোনো অগ্রগতির খবর জানাতে পারেনি কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
চলতি বছরের জুলাই মাসে বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রক্ষিত স্বর্ণ নিয়ে বিতর্কের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে সরকারের টনক নড়ে । এরপর বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির ২৩ জুলাই ছয় সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন।

কমিটিকে ২৪ আগস্টের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। ১ মাসের মধ্যে প্রতিবেদন প্রস্তুত না হওয়ায় কমিটি ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় নেয়। কিন্তু গতকাল ২৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যেও কমিটি প্রতিবেদন জমা দিতে পারেনি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক এন এম আবুল কাসেমকে তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়। কমিটির সদস্য করা হয় কারেন্সি অফিসার আওলাদ হোসেন চৌধুরী ও ইন্টারনাল অডিট ডিপার্টমেন্টের মহাব্যাবস্থাপক সদরুল হুদাকে। আরও রয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ২ জন মহাব্যাবস্থাপক ও ১ জন উপ-মহাব্যাস্থাপক।

স্বর্ণ নিয়ে খোদ বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের মধ্যে এক ধরনের অসন্তোষ বিরাজ করছে। স্বর্ণ বিতর্কের কারণে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুনাম ক্ষুন্ন হয়। স্বর্ণ নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ধারণা যাই হোক জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া রয়েছে। তাদের ধারণা,বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে স্বর্ণ চুরি হয়। চুরি ধামাচাপা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের দিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আবার জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন খাতে ফেরাতেই তদন্তে গড়িমসি।

তদন্ত কমিটির প্রধান কর্মকর্তা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক এ এন এম আবুল কাসেম ব্যস্ত থাকায় যোগাযোগ করা যায়নি। কথা বলতে রাজী হননি তদন্ত কমিটির আরেক সদস্য ও ইন্টারনাল অডিট ডিপাটমেন্টের মহব্যবস্থাপক সদরুল হুদা। তিনি বলেন, আমি কিছু বলবোনা। আমার অনেক সীমাবদ্ধতা আছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত