প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঢাকার চার নদীতে স্থাপন হচ্ছে ১৫৬ কোটি টাকার সীমানা পিলার

তরিকুল ইসলাম সুমন : ঢাকার চার নদী বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা বালু ও তুরাগ নদীতে নতুন করে ১০ হাজার ৪শ সীমানা পিলার স্থাপন করা হচ্ছে। এ কাজে ব্যয় হবে ১৫৬ কোটি টাকা (প্রতিটি দেড় লাখ টাকা)। এমনটাই জানিয়েছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহণ কর্তৃপক্ষের (বিআইডবিøউটিএ) চেয়ারম্যান কমোডর এম মোজাম্মেল হক।

বিআইডবিøউটির চেয়ারম্যান বলেন, এর আগে ২০১১ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত সময়ে চার নদীতে ৯ হাজার ৭৪টি সীমানা পিলার স্থাপন করা হয়েছিল। স্থাপনকৃত সীমানা পিলার ছিল ভঙ্গুর, প্রতিস্থাপন যোগ্য। একারণে রাতের আঁধারে স্থানীয় মানুষ এগুলে সরিয়ে অন্য জায়গায় অথবা নদীর কিনারে স্থাপন করে দিচ্ছে। অনেক জায়গায় এগুলো উপড়ে ফেলাও হয়েছে। একারণে বর্তমানে নতুন করে সীমানা পিলার স্থাপনের জন্য উদ্যোগ নিয়েছে নৌ পরিবহণ মন্ত্রণালয়।

তিনি আরো বলেন, চারনদীর তীরে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের পিডাবিøউডি ২০১১ সাল থেকে নদীর পাড়ে সীমানা পিলার স্থাপন করা শুরু করলেও এগুলোর প্রায় অর্ধেকে বেশি পিলার নিয়ে সমস্যা রয়েছে। এগুলো যথাযথ জায়গায় স্থাপন করা হয়নি। একারণে অধিকাংশই এখনো বিআইডবিøউটিএ বুঝে পায়নি।

একারণে ইতোমধ্যে স্থানীয় জেলা প্রশাসক এবং ভুমি মন্ত্রনালয়ের সমন্বয়ে যৌথ জরিপ কাজ শেষ করা হয়েছে। সীমানা পিলার স্থাপন কাজের উদ্বোধন আগামী মাসের ৫ তারিখে করা হবে।

নতুন সীমানা পিলার সম্পর্কে বিআইডবিøউটির চেয়ারম্যান বলেন, নতুন করে যে সীমানা পিলার স্থাপন করা হবে এগুলো সঠিক জায়গায় বসানো হবে। প্রতিটি পিলার অনেক উচু করে বসানো হবে। কেই যাতে এগুলো নষ্ট করতে বা উঠিয়ে ঠেলতে না পারে এজন্য ৭০-৮০ ফিট গভীর করে পিলার বসানো হবে। যা আগামী ১৮ মাসের মধ্যে শেষ করা হবে।

নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ঢাকার চার পাশের চার নদীর সীমানা নির্ধারণের জন্য সীমানা পিলার স্থাপনে ২০১০ সালে ১৫ কোটি টাকার প্রকল্প নেওয়া হয়েছিল। এতে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের জন্য ১১ হাজার ৮৮৮টি পিলারের মধ্যে ৯ হাজার ৭৪টি সীমানা পিলার স্থাপন করা হয়। ঢাকায় ৪ হাজার ৬৩টি পিলার এবং নারায়ণগঞ্জে ৫ হাজার ১১ টি পিলার স্থাপন করা হয়। এসব পিলারের মধ্যে ঢাকায় ৯৪২টি পিলার এবং নারায়ণগঞ্জে ২ হাজার ১৯৮টি পিলার সঠিক জায়গায় বসানো হয়নি।
উল্লেখ্য, হাইকোর্ট ২০০৯ সালের ২৫ জুন সিএস পদ্ধতি অনুসারে নদীর পাড় দখলমুক্ত করার এবং একই বছর আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরে (বর্ষাকাল) নদীর ঢাল নির্ধারণের নির্দেশ দেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত