প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

‘জীবাণুবাহিত চর্মরোগ নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজন বিশেষজ্ঞদের নিরন্তর গবেষণা’

সাব্বির আহমেদ : চর্মরোগ বিষয়ে সর্বশেষ অগ্রগতি নিয়ে বৈজ্ঞানিক এক সেমিনারে বক্তারা বলেছেন, জীবাণুবাহিত চর্মরোগের যথার্থ নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজন চর্মরোগ বিশষেজ্ঞদের নিরন্তর গবেষণা ও চিকিৎসা সেবায় মনোনিবেশ করা।

রোববার দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চর্ম ও যৌনব্যাধি বিভাগের উদ্যোগে ঢাকা ক্লাবের স্যামসন এইচ চৌধুরী লাউঞ্জে চর্মরোগ বিষয়ে সর্বশেষ অগ্রগতি নিয়ে বৈজ্ঞানিক সেমিনার (Scientific Seminar on Updates in Dermatology) অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বক্তারা এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এ কে এম মোজাম্মেল হক, এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী জনাব মোঃ মশিউর রহমান রাঙ্গা, এমপি।

অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মেডিক্যাল এ্যাসোসিয়েশনের সম্মানিত সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, বাংলাদেশ ডার্মাটোলজিক্যাল সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক এ কিউ এম সেরাজুল ইসলাম, মহাসচিব অধ্যাপক এহসানুল কবির জগলুল।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) ও চর্ম ও যৌনব্যাধি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার।

অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে ছিল বৈজ্ঞানিক সেশন। মন্ত্রী এ কে এম মোজাম্মেল হক এমপি বলেন, চিকিৎসার ক্ষেত্রে বর্তমান সরকারের আমলে ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে বর্তমান সরকার ১২ হাজার চিকিৎসক, ১৫ হাজার নার্স ও প্রয়োজনীয় সংখ্যক স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগ দিয়েছে। দেশের মানুষকে আরো উন্নত সেবা প্রদান করতে গত ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ‘সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল’-এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছেন। গণমানুষকে সেবা দিতে বর্তমান সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

তৃণমূল্য স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতেই বর্তমান সরকার গ্রামেগঞ্জে আবারো কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করেছে।বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব মোঃ মশিউর রহমান রাঙ্গা, এমপি হাতুরে ডাক্তারদের বিষয়ে রোগীদের আরো বেশি সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

বৈজ্ঞানিক সেশনে অত্যাধুনিক ডার্মাটোলজি সার্জারী, বাংলাদেশের রোগীদের মধ্যে সোরিয়াসিস রোগের প্রবণতা বিষয়ক গবেষণার ফলাফল, কুষ্ঠ রোগের জটিলতা ও চিকিৎসার সর্বশেষ অবস্থা, ছত্রাক জাতীয় চর্ম রোগের চিকিৎসা ইত্যাদি তুলে ধরা হয়। সোরিয়াসিস রোগের প্রবণতা বিষয়ক গবেষণার ফলাফলে জানানো হয়, বাংলাদেশের প্রতি এক হাজার জনে সাতজনের এই রোগের প্রবণতা রয়েছে। কুষ্ঠ রোগের ক্ষেত্রে জানানো হয়, বাংলাদেশে বর্তমানে কুষ্ঠ রোগের কার্যকর চিকিৎসা রয়েছে। ছত্রাক জাতীয় চর্ম রোগের চিকিৎসা, লেজারের মাধ্যমে চিকিৎসা ও কসমেটিক সার্জারীর ক্ষেত্রে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞদের আরো সচেতন ও সতর্ক হতে হবে এবং রোগীদেরকে যৌক্তিকভাবে চিকিৎসা সেবা দিতে হবে। অন্যদিকে রোগীরেকেও আরো সচেতন হতে হবে এবং চর্মরোগ হলে চর্ম রোগ বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবন করা যাবে না।

বর্তমানে দেখা যাচ্ছে, অপচিকিৎসা, ভুল চিকিৎসা, হাতুড়ে ডাক্তারের চিকিৎসা এবং অবৈজ্ঞানিক ওষুধ সেবনের কারণে কিংবা অপ্রয়োজনীয় লেজার সার্জারীর কারণে রোগীর অনেক ক্ষতি হয়, এমনকি রোগীর শরীরে ওষুধের কার্যকারিতা হ্রাস পাওয়ায় রোগ নিরাময় কঠিন বা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এই সমস্যাসমূহ চর্মরোগ বিশেষজ্ঞদের সম্মলিত কর্মকান্ডের মাধ্যমে রোগীদের কল্যাণে নিরসন করতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত