প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আইনের অপব্যাখ্যা খালেদা জিয়ার বিচারকাজ ‘বন্ধের কৌশল’ অডিও ফাঁস নিয়ে দুদক আইনজীবীর বক্তব্য

হ্যাপি আক্তার : বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবী ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও বেগম জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বেগম খালেদা জিয়ার বিরোদ্ধে করা জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিচারকাজ পুরোপুরি বন্ধ রাখার কৌশল নিয়ে ফোনালাপের অডিও ফাঁস হয়েছে বলে সময় টেলিভিশনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। তাদের এই কথোপকথনের সময় অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়াকে আদালতে না যাবার পরামর্শ দেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী। দুদক আইনজীবী জানালেন, আইনজীবীদের অনুপস্থিতিতে বিচারকাজ চলতে আইনি কোনো বাধা নেই।

সম্প্রতি জিয়া চ্যারটিবেল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়ার অনুপস্থিতিতেই বিচার কাজ চলবে বলে আদেশ দিয়েছেন আদালত। বিচারক বলছেন, বিচার বিলম্বিত করতে অসুস্থতার অজুহাতে বেগম জিয়া আদালতে আসছেনা । রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপতি ঢাকার বিশেষ আদালত-৫-এর বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে এ মামলায় ব্যক্তিগত হাজিরা থেকেও অব্যাহতি দেয়া হয় বেগম জিয়াকে।

এমন প্রেক্ষাপটে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম খালেদা জিয়ার বিচারকাজ পুরোপুরি বন্ধ রাখার কৌশল নিয়ে বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবী ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও বেগম জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়ার ফোনালাপের অডিও ফাঁস হয়েছে।

ফাঁস হওয়া ফোনালাপে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী আদালত পরিবর্তিত না হওয়া পর্যন্ত বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের আদালতে না যাওয়ার পরার্মশ দিয়েছেন।

ফাঁস হওয়া অডিও নিয়ে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসনে কাজল সম্পূর্ণ ঘটনাকে ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখছেন। তিনি বলেন, আইনজীবীরা অনুপস্থিত থাকলেও বিচারকাজ চলতে আইনি বাধা নেই।

আইনজীবী মোশাররফ হোসনে কাজল বলেন, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী অনেক ভালো একজন ব্যক্তি, আমরা তাকে অনেক পছন্দ করি, কিন্তু যে পরামর্শ তিনি দিচ্ছেন এটা সঠিক কাজ করছেন না। কারণ এই বিষয়টি উনার না। উনার বিষয় হলো চিকিৎসা নিয়ে, এই বিষয়ে তিনি যদি জাতিকে জ্ঞান দেন এবং রোগমুক্ত করেন তাহলে আমরা খুশি হব। কিন্তু তিনি যদি আইনের অপব্যাখ্যা করেন, যদি আইন না বুঝে কারো কাছ থেকে শুনে শুনে কোনো ব্যক্তিকে আদালতে না যাওয়ার জন্য বাধা দেন অথবা উপদেশ দেন তাহলে এটা অত্যন্ত দুঃখজনক হবে।

তিনি বলেন, ‘তারা যদি তাকে রিপ্রেজেন্টেশন না দেন, তার পক্ষে কোনো বইপুস্তক আইনের কথা না বলে থাকেন তাহলে আদালত যেটা ভাল মনে করবেন সেই হবে। অনুপস্থিতিতেই বিচার হবে। ষড়যন্ত্র করে সজ্জন ব্যক্তিদের উচিত হবে না, এই বিচারকাজকে বাধাগ্রস্থ করা।’

আগামী ২৪, ২৫ ও ২৬ সেপ্টেম্বর জিয়া চ্যারটিবেল দুর্নীতি মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের পরর্বতী দিন ধার্য আছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ