প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

ইরানে সেনা কুচকাওয়াজে জঙ্গিদের গুলি নিহত ২৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইরানে সামরিক বাহিনীর কুচকাওয়াজে জঙ্গি হামলা হয়েছে। দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় আহভাজ শহরে গতকাল শনিবার ওই সেনা প্যারেডে বন্দুকধারীদের গুলিতে নারী-শিশুসহ অন্তত ২৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হয়েছেন সাংবাদিকসহ ৫৭ জন। এ হামলাকে চরমপন্থিদের আঘাত বলে মনে করছে তেহরান। হামলার কয়েক ঘণ্টা পর দায় স্বীকার করেছে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস ও আহভাজ ন্যাশনাল রেজিস্ট্যান্স নামে একটি সরকারবিরোধী গ্রুপ। খবর বিবিসি ও এএফপির।

জাতীয় প্রতিরক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে তেহরানের অদূরে আহভাজ শহরে সামরিক বাহিনীর প্যারেড চলছিল। শনিবার সেই প্যারেডে অতর্কিতে হামলা চালায় জঙ্গিরা। সামরিক বাহিনীর পোশাকে থাকা বন্দুকধারীরা ওই কুচকাওয়াজকে লক্ষ্য করে প্রায় ১০ মিনিট ধরে গুলি চালায়। বার্তা সংস্থা তাসনিম জানিয়েছে, সন্ত্রাসীরা প্যারেড প্রাঙ্গণে ঢুকতে না পেরে দূর থেকে গুলি চালায়। কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানের জন্য স্থাপিত মঞ্চ লক্ষ্য করেও গুলি চালায় হামলাকারীরা। এতে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। ইরানের রিপাবলিক নিউজ এজেন্সি ইরনা জানিয়েছে, হামলাকারীদের মধ্যে ৪ থেকে ৫ জন এরই মধ্যে ইরানি নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নিহত হয়েছে। আহভাজের ডেপুটি গভর্নর আলী হোসেন হোসেনজাদা বলেন, নিরাপত্তা বাহিনী দুই অস্ত্রধারীকে হত্যা করেছে এবং অন্য দুইজনকে জীবিত আটক করেছে।

ইরানের গণমাধ্যম হামলাকারীদের ‘তাকিফিরি বন্দুকধারী’ হিসেবে বর্ণনা করেছে। আগে এই গ্রুপটিকে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ত (আইসিল) হিসেবে বর্ণনা করত দেশটির গণমাধ্যম। ১৯৮০ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত ইরান-ইরাক যুদ্ধ উদযাপনে ওই কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হচ্ছিল। ইরানের তেলসমৃদ্ধ খুজিস্তান প্রদেশের রাজধানী আহভাজ। এর আগে এই প্রদেশে তেলের পাইপলাইনে হামলা চালিয়েছিল আরব বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এ আক্রমণের জন্য সুন্নি কিংবা আরব জাতীয়তাবাদীদের দায়ী করেছে। দেশটির আরব সংখ্যালঘুদের মধ্যে বিচ্ছিন্নতাবাদে মদদ দেওয়ার জন্য তেহরান সরকার এর আগে প্রতিবেশী সৌদি আরবকে দায়ী করেছে।

এ ঘটনার পর ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি হতাহতদের পরিবারের প্রতি গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, এ হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নাম উল্লেখ না করলেও এ ঘটনার জন্য পরোক্ষভাবে সৌদি আরবকেই দায়ী করেছেন ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। টুইটারে তিনি বলেন, একটি বিদেশি সরকার এই হামলায় জড়িত সন্ত্রাসীদের নিয়োগ, প্রশিক্ষণ, অর্থ ও অস্ত্র দিয়েছে। ইরান মনে করে, সন্ত্রাসে মদদদাতা ও তাদের প্রভু যুক্তরাষ্ট্র এ হামলার জন্য দায়ী। দেশের নাগরিকদের জীবন রক্ষায় দ্রুতই কঠোর পদক্ষেপ নেবে ইরান। সূত্র : সমকাল

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত