প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শ্রীমঙ্গলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নার্সের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু

স্বপন কুমার দেব, মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নার্সের অবহেলায় এক ডায়রিয়া রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ তুলেছেন মৃতের স্বজনরা। এ ঘটনায় ক্ষোভে ফোঁসে ওঠেন অন্যরাও। এসময় মৃতের আত্মীয় স্বজন, প্রতিবেশীরা প্রায় দুই ঘন্টা ধরে হাসপাতালের ডাক্তার ও নার্সদের ঘেরাও করে রাখে। পরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পুলিশ প্রশাসনের উপস্থিতিতে অভিযুক্তের বিরুদ্ধের ব্যবস্থা গ্রহনের প্রতিশ্রুতিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিকে আসে।

বৃহস্পতিবার এ ঘটনাটি ঘটে। মৃত পারত মৃধার ছেলে রিপন মৃধা অভিযোগ করে বলে, শ্রীমঙ্গল হাসপাতালে তার বাবাকে কয়েকটি স্যালাইন দেয়া হলেও রাত ১২ টার পর আর কোন স্যালাইন দেয়া হয়নি। এমনকি তার অবস্থার খবরও কেউ নেয়নি।

রাত ২ টার দিকে তার বাবার অবস্থার আরো অবনতি হলে সে হাসপাতালের ডিউটি রুমে গিয়ে দেখে রুমের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ আছে। রিপন ডিউটি রুমের দরজায় অনেক ডাকাডাকি করে আবার ফিরে আসে। এভাবে বেশ কয়েকবার রিপনের চিৎকারে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অন্যান্য রোগীর সাথে থাকা স্বজনরাও এগিয়ে আসেন। তারা সকলে মিলে দরজায় জোরে ধাক্কা দেয়া শুরু করেন এবং দরজা ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ নেন।

এমন সময় ভোর আনুমানিক ৪ টার দিকে গীতা রানী চোখ মুছে মুছে দরজা খুলে তাদেরতে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন। রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক জেনেও তিনি হাত-মুখ ধোয়া ও ড্রেস পাল্টানোর বাহান ধরে আরো ১ ঘন্টা দেরী করেন। ভোর পৌনে ৫ টার দিকে গীতা রানী পারশ মৃধাকে মৃত ঘোষনা দিয়ে চলে যান। এর প্রায় ১০ মিনিট পরে পারত মৃধা আবারও শ্বাস প্রশ্বাস নিতে দেখা যায়। এ অবস্থায় আবারও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ডাকলে ৫ টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

পরবর্তীতে ভোর ৫ টা হতে সকাল ৭ টা পর্যন্ত সাধারণ জনগণ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকদের ঘেরাও করে ফেলে। পরে ভাড়াউড়া ডিভিশনের ডিজিএম জি এম শিবলী, কালীঘাট ইউপি চেয়ারম্যান প্রানেশ গোয়ালা, ইউপি সদস্য শাওন পাশী, মিতু রায়, শ্রীমঙ্গল থানার এসআই রুকনুজ্জামান, মৃত ব্যাক্তির ভাই কাশীনাথ মৃধা ও ছেলে রিপন মৃধার উপস্থিতিতে একটি জরুরী বৈঠকে ঘটনার সত্যতা খোঁজে পাওয়া যায়।

এসময় উপস্থিত ব্যাক্তিদের আনিত অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জয়নাল আবেদীন টিটো নার্স গীতা রানী দাশের দায়িত্বে অবহেলার বিষয়ে তড়িৎ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে দ্রুত প্রতিবেদন পাঠানোর ব্যবস্থা নিচ্ছেন বলে আশ্বস্থ করলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ