প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নওগাঁয় বিবস্ত্র করে টাকা হাতিয়ে নেয়া চক্রের চার নারীসহ আটক 8

আশরাফুল নয়ন, নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁয় প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিবস্ত্র করে ছবি তোলে। এরপর মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক। এমন চক্রের চার নারীসহ আটজন আটক করেছে পুলিশ। ভোর রাতে সদর উপজেলার পার-নওগাঁর দক্ষিণপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এই চক্রের আরো দুইজন নারী সদস্য রয়েছে। তাদেরও দ্রুত আটক করার জন্যে অভিযান চলছে বলে পুলিশ জানায়।

আটককৃতরা হলেন, নওগাঁ সদরের ফতেপুর গ্রামের আব্দুল হামিদ মন্ডেলের ছেলে হারুন মন্ডল (৩৬), পার-নওগাঁর দক্ষিণপাড়ার আজাহার আলীর লেছে আরিফ হোসেন(৩০),আফজাল হোসেন মোল্লার ছেলে নূর ইসলাম নোবেল(২০), আব্দস সালামের ছেলে মো. আশিক(১৯), নাফিউল ইসলাম মূসার স্ত্রী শান্তা খাতুন (৩০), মো. খোকনের স্ত্রী নিপা খাতুন (৩২), মৃত শহিদুল ইসলামের মেয়ে সন্ধ্যা খাতুন(১৯) এবং বগুড়া জেলার আদমদিঘী উপজেলার কেল্লা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের মেয়ে রিয়া খাতুন (৩০)।

স্থানীয় ও পুলিশ জানায়, নওগাঁ শহরে বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন সময় বাসা ভাড়া নেন এই প্রতারক চক্র। এরপর শান্তা, নিপা, সন্ধ্যা ও রিয়া নওগাঁর বিভিন্ন শ্রেণিপেশার ব্যক্তিকে টার্গেট করে মোবাইল ফোন নম্বর সংগ্রহ করেন। এরপর তাদের সাথে কথিত প্রেম সম্পর্কে গড়ে তোলো। একপর্যায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে বাড়িতে ডাকে আনে। এই ফাঁদে কেউ কেউ সাড়া দিয়ে ফেঁসে যান। তাদের বাড়িতে ডেকে এনে ঘরের দরজা বন্ধ করে উভয়ে বিবস্ত্র হয়। ছেলে সহযোগিরা এসে দরজা খুলে ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে। এরপর তাদের বিবস্ত্র অবস্থায় বিভিন্ন আঙ্গিকে ছবি তোলে এই চক্র। ওই ছবিগুলো ফেইসবুকে বা নানাভাবে ইন্টারনেটে প্রকাশ করার ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের অর্থ আদায় করে তারা।

নওগাঁ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই জানান, সদরের পার-নওগাঁর দক্ষিণপাড়ার এলাকার এমনই এক ব্যক্তিকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে এই চক্রের এক নারী। এরপর ওই লোকটিকে ওই বাসায় নিয়ে গিয়ে বিবস্ত্র করে ছবি তুলে। এরপর ৮০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। দাবিকৃত টাকা না দিলে ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখায়। এরপর ওই লোকটির লোকজন থানায় সংবাদ দিলে পুলিশ টাকা দেয়ার জন্যে সাদা পোশাকে গিয়ে হারুন মন্ডলকে আটক করে। হারুন মন্ডলের দেয়া তথ্য মতে সদরের পার-নওগাঁর দক্ষিণপাড়া এলাকায় একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে আরো সাতজনকে আটক করা হয়। তাৎক্ষণিক এই চক্রের আরো দুই নারীর নাম জানা গেছে। তাদের আটকের জন্যে অভিযান চলছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ওসি আরো জানান, ইতিপূর্বে নওগাঁ শহরের বাঙ্গাবাড়িয়া এলাকাং শিউলী ম্যানসনের চতুর্থ তলায় ভাড়া থাকাকালীন সময় মঙ্গলপুর গ্রামের এক ব্যক্তিকে এমন ফাঁদে ফেলে নগদ ৫০ হাজার টাকা আদায় করে এবং ৮ লাখ টাকা দাবী করে সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নিয়ে ছেড়ে দিয়েছিল।

পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন জানান, দীর্ঘদিন থেকে এই চক্র নওগাঁর বিভিন্ন নারী-পুরুষকে প্রেমের ফাঁদে বিবস্ত্র করে ব্লাকমেল করে বিভিন্ন ভাবে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল এমন তথ্য জানা গেলেও প্রমাণ না থাকায় তাদের আটক করা সম্ভব হচ্ছিল না। কারণ, তারা দ্রুত একই এলাকায় বেশিদিন থাকতো না। এই চক্রের সাথে আরো যারা জড়িত তাদের দ্রুত আটক করে আইনের আওয়াতায় নিয়ে আসা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ