প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

লামায় লাল সবুজের বাড়ি পেয়ে মহাখুশি দরিদ্র মুক্তিযোদ্ধা

মো. নুরুল করিম আরমান, লামা : ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন বাজি রেখে দেশ, জাতি ও মানবকল্যাণে ঝাঁপিয়ে পড়া অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধার সম্মানার্থে ও কল্যাণে যুদ্ধাহত হেলু মিয়ার পর এবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার স্বরুপ ‘বীর নিবাস’ নামের একটি লাল সবুজের বাড়ি উপহার পেলেন বান্দরবানের লামা উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা রজ্জব আলী।

শেষ বয়সে লাল সবুজের সরকারি বাড়ি পেয়ে এ মুক্তিযোদ্ধা এখন মহাখুশি। দেশ স্বাধীনের পর মুক্তিযোদ্ধা রজ্জব আলী উপজেলার লামা সদর ইউনিয়নের পশ্চিম লাইনঝিরি গ্রামে একটি বাঁশের তৈরি ঘরে স্ব-পরিবারে বাস করতেন। মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে এলজিইডি’র উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর ‘বীর নিবাস’ বাড়িটি নির্মাণ করে দিয়েছে।

সূত্র জানায়, ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ক্ষমতা আসার পর দেশের সূর্য্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের, বিশেষ করে দরিদ্র ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবতে থাকেন। এ ধারাবাহিকতায় সরকার মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় গঠনসহ ধাপে ধাপে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানি বৃদ্ধি ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসন ব্যবস্থা গড়ে তোলার পরিকল্পনা হাতে নেন।

২০০১ সালে বিষয়টি রাজনৈতিক সংস্কৃতির জালে পেছিয়ে যায়। ২০০৯ সাল থেকে আবার বর্তমান জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতায় এসে ধারাবাহিক উন্নয়ন শুরু করেন ৭১ এর রণাঙ্গনের মুক্তিসেনা ও তাদের ত্যাগের ফসল স্বাধীন সোনার দেশ গড়ার।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর প্রধানমন্ত্রীর উপহার স্বরূপ ভূমিহীন মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ‘বীর নিবাস’ নির্মাণ কাজ শুরু করে। বাস্তবায়ন কর্তৃপক্ষ এলজিইডি গত অর্থ বছরে সাড়ে নয় লাখ টাকায় বাড়িটি নির্মাণের দরপত্র আহ্বান করেন। সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে রজ্জব আলীর বাড়ীটির নির্মাণ কাজ পান ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স মিল্টন ট্রেডার্স। ৫০০ বর্গফুটের বীর নিবাসে রয়েছে- দুইটি শয়নকক্ষ, একটি বসার কক্ষ, একটি রান্নাঘর, একটি বারান্দা, একটি টয়লেট ও একটি টিউবওয়েল এবং গৃহের বাইরে একটি পাকা উঠান, একটি গোয়ালঘর ও একটি পোলট্রি শেড। চলতি মাসে বীর নিবাসের কাজ শেষ হওয়ার পর গত বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ-জান্নাত রুমি মুক্তিযোদ্ধা রজ্জব আলীকে বাড়ির চাবি বুঝিয়ে দেন।

এ সময় উপজেলা মু্ক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ মাহাবুবুর রহমান, এলজিইডির সার্ভেয়ার মো. জাকির হোসেন মোল্লা, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মো. আবু সুফিয়ান, সমাজসেবক নুরুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ-জান্নাত রুমি বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার নানা কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। এ ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের রেশন-ভাতা, সন্তানদের লেখাপড়া, চাকুরীসহ বিভিন্ন প্রকার আর্থিক সহযোগিতার পাশাপাশি বাড়িও উপহার দিচ্ছেন। এ প্রাপ্তিতে মুক্তিযোদ্ধা হেলু মিয়ার পর এবার রজ্জব আলীও একজন সৌভাগ্যবান।

তিনি আরও বলেন, উপজেলায় আরো অনেক অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা রয়েছে, আগামীতে তাদের জন্য বরাদ্দ পাওয়া সাপেক্ষে এ কর্মসূচীর আওতায় ঘর নির্মাণ করে দেয়া হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত