প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনগ্রসর জাতি-গোষ্ঠীর স্বার্থে কোটা রাখা উচিত

ড. জিনাত হুদা : কোটা নিয়ে অনেক কথা হয়েছে। আন্দোলনকারীরাও চেয়েছে, প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কোটা নিয়ে আর রাজনৈতিক সুবিধা নিতে দেয়া হবে না। আমার মত হলো, কোটা এখনো সারা বিশ্বে রয়েছে। অনগ্রসর মানুষকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সারা বিশ্বে এখনো কোটার ব্যবহার চালু রয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বলতে পারি, কমনওয়েলথ স্কলারশিপ যেটা সারা পৃথিবীতেই রয়েছে। এটি তৃতীয় বিশ্বের লোকজন পায়। এরকম উদাহরণ সারা বিশ্বে আছে এবং থাকবে। আসলে কোটার সাথে একটি বিশাল রাজনীতি জড়িয়ে গেছে।  বাংলাদেশে এখনো অনেক অনগ্রসর জাতি-গোষ্ঠী রয়েছে। যদি মেয়েদের কথা বলি, তাহলে কয়টা মেয়ে বাংলাদেশে অনেক দূর যেতে পেরেছে।

আরেকটি বিষয় হচ্ছে, যা আজকে যৌক্তিক তা হয়তো কালকে যৌক্তিক নাও হতে পারে। এই বিষয়গুলো খুবই আপেক্ষিক। কমনওয়েলথ স্কলারশিপের মত উদাহরণ আমি দিলাম, যেটি এখনো সারা বিশ্বে চালু আছে। এখন যদি তৃতীয় বিশ্বের জন্য স্কলারশিপ তুলে দেয়া হয় তাহলে আমরা কতটা এগুতে পারবো!  বর্তমানে যারা কোটা আন্দোলন করছে, তারাই তো ভবিষ্যতে আবার কমনওয়েলথ স্কলারশিপের জন্য যাবে।

স্কলারশিপটা যদি বন্ধ করে দেয়া হয় তাহলে কীভাবে তারা বিদেশের ডিগ্রি অর্জন করবে? তখন তার এত লাখ লাখ ডলার বা পাউন্ড কোথায় পাবে? তাই আমার মতামত হলো, এ বিষয়টিকে সার্বিকভাবে বিবেচনায় আনা উচিত। সব জায়গা থেকে আপনি হুড়মুড় করে কোটা তুলে দিলেন, আর অনগ্রসর জাতিকে আরো অনগ্রসর জাতি করে রাখবেন আমার বিবেচনায় এটি যৌক্তিক নয়।

পরিচিতি : অধ্যাপক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাবি/মতামত গ্রহণ : ফাহিম আহমাদ বিজয়/সম্পাদনা : রেজাউল আহসান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ