প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১৩ উপ-নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন ৬ জন স্ত্রী, পূত্র ও ভাই
দশম সংসদে তিন মন্ত্রীসহ ১৫ এমপি’র অনন্ত যাত্রা

আসাদুজ্জামান সম্রাট : দশম জাতীয় সংসদে প্রায় পৌনে পাঁচ বছর সময়কালে দু জন মন্ত্রী, একজন প্রতিমন্ত্রীসহ ১৫জন সংসদ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১৩টি উপ-নির্বাচনে ৬টিতেই প্রয়াত সংসদ সদস্যের স্ত্রী, সন্তান ও ভাই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

দশম জাতীয় সংসদের টাঙ্গাইল-৮ আসনের নির্বাচিত সদস্য হিসেবে শপথ গ্রহণ করলেও সংসদ অধিবেশনে যোগ দিতে পারেননি শওকত মোমেন শাহজাহান। তার আসনে অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে তার ছেলে অনুপম শাহজাহান জয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

একই বছর ৯ এপ্রিল ঢাকায় এ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন বরিশাল-৫ আসনের সংসদ সদস্য শওকত হোসেন হিরণ। সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার আগে তিনি বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন। তার আসনের উপ-নির্বাচনে তার স্ত্রী জেবুন্নেসা আফরোজ সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

একই বছর ৩০ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নাসিম ওসমানের মৃত্যু হয়। তার আসনে অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে তার ভাই সেলিম ওসমান জয়লাভ করেন।

২০১৪ সালের ৬ অক্টোবর ঈদের দিনে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের সংসদ সদস্য ইসাহাক হোসেন তালুকদার। ২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সিরাজুল আকবর ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। এ দু’টি আসনে তার নিকটাত্মীয় কেউ দলীয় মনোনয়ন পাননি।

২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। তার আসনে অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে তার স্ত্রী সায়রা মহসিন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০১৬ সালের ২ মে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে মৃত্যুবরণ করেন ময়মনসিংহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন মজিবুর রহমান ফকির। ১১ মে ভারতের মুম্বাইয়ে হলি ফ্যামিলি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন সমাজ কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী প্রমোদ মানকিন। ক্যাপ্টেন মুজিবুর রহমান ফকিরের নিকটাত্মীয়ের কেউ দলীয় মনোনয়ন না পেলেও প্রমোদ মানকিনের ছেলে জুয়েল আরেং উপ-নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর দুর্বৃত্তদের হাতে নিজ বাড়িতে খুন হন গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন। তার শূন্য আসনে দলের প্রার্থী হন গোলাম মোস্তফা। সড়ক দুর্ঘটনায় তিনি মৃত্যুবরণ করলে ওই আসনে দ্বিতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে জাতীয় পার্টির ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০১৭ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ হারায় সংসদের সবচে’ অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে। ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার আসনে অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে তার স্ত্রী ড. জয়া সেনগুপ্ত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০১৭ সালের ১৬ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন মৎস ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী ছায়েদুল হক। ২০১৮ সালের ১০ মে মৃত্যুবরণ করেন একেএম মাঈদুল ইসলাম। বিএনপি থেকে রাজনৈতিক জীবন শুরু করলেও তিনি মৃত্যু পর্যন্ত জাতীয় পার্টির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোস্তফা রশিদী সুজা মৃত্যুবরণ করেন। ঢাকায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের চিফ হুইপ তাজুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি জাতীয় সংসদের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছিলেন। সংসদের মেয়াদ কম থাকায় তাঁর আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ