প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নতুন হুকুম

আলী রীয়াজ

 

রচনা-জাবেদ আখতার

(অনুবাদ – হাইকেল হাশমী)

 

“কেউ হুকুম দিয়েছে

বাতাস বইবার আগে জানাবে

কোন দিশায়ে সে যাবে

বাতাসকে আরো জানাতে হবে

বইবার সময় তার গতি কি হবে,

ঝড় তুলার নেই কোন অধিকার

এই যে বালির দেয়াল

এই যে কাগজের তৈরী হচ্ছে প্রাসাদ

তা রক্ষা করা আমাদের প্রতিজ্ঞা

আর ঝড়ের হলো তাদের সাথে পুরান শত্রুতা।

কেউ দিয়েছে হুকুম

নদীর ঢেউ

ছেড়ে দিক অবাধ্যতা

নিজ সীমার মধ্যে থাকুক

এই যে ভেসে উঠা

এই যে ডুবে যাওয়া

এই যে ভাসা আর ডুবা

মোটেও এটা ঠিক না

এইগুলো হলো উন্মাদনার লক্ষণ

এইগুলো হলো বিদ্রোহের লক্ষণ

বিদ্রোহ তো করা হবে না সহ্য

উন্মাদনা করা হবে না সহ্য

যদি ঢেউগুলো চায় নদীতে থাকতে

তাকে বইতে হবে হয়ে ধীর, স্থির, শান্ত।

কেউ দিয়েছে হুকুম যে এই বাগানে

থাকবে ফুল শুধু এক রংগের,

কিছু আমলা

নিবে এই সিদ্ধান্ত

ভবিষ্যৎ বাগান কেমন হবে,

অবশ্যই ফুল হবে এক রংগের

কিন্তু ফুলের রং

হবে কতো গাঢ় অথবা হালকা

এই সিদ্ধান্ত নিবে সেই আমলা।

কাউকে কেউ কি ভাবে বুঝাবে

কোনো বাগানে

শুধু এক রংগের ফুল ফোটে না

কোন দিন এটা হতেই পারে না,

একটি রংগের মাঝে

লুকিয়ে থাকে শত রং,

যারা বাগান এক রংগের চেয়েছে

এখন তাদের দেখো

যখন এক রংগের ভিতর

সহ¯্র রং উঠেছে ভেসে

এখন তারা কতো চিন্তিত

তারা কতো যে বিরক্ত।

কেউ কাউকে কি ভাবে বুঝাবে

বাতাস আর ঢেউ

কোন দিন কি শুনেছে কারো হুকুম,

বাতাস

ক্ষমতাবানদের মুঠোয়ে

হাতকড়ায়ে আর বন্দীশালায়

থাকে না রুদ্ধ,

এই ঢেউগুলো

যদি তাদেরকে দেয়া হয় বাধা

নদী যতই হোক না শান্ত

হয়ে উঠে ফুলে ফেঁপে অশান্ত

আর এই অশান্তির পরিনাম

হয় শুধু বন্যা ও মহাপ্লাবন

কেউ কাউকে এটা কি ভাবে বুঝাবে?”

-ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত