প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘হানিফ পরিবহনের গাড়ি রাস্তায় চলতে না দেওয়ার হুমকি’

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সাইদুর রহমান পায়েলকে ‘হত্যার’ বিষয়ে ক্ষতিপূরণ দাবি ও দোষীদের বিরুদ্ধে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে সন্দ্বীপ অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রাম নামে একটি সংগঠন। অন্যথায় হানিফ পরিবহনের গাড়ি রাস্তায় চলতে না দেওয়ার হুমকি দিয়েছে সংগঠনটি।

মঙ্গলবার (৩১ জুলাই) সকালে চট্টগ্রাম নগরীর দামপাড়ায় হানিফ পরিবহনের কাউন্টার ঘেরাও কর্মসূচিতে এসব কথা বলেছেন সংগঠনের নেতারা। কর্মসূচিতে তারা সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খানের বিতর্কিত বক্তব্যের সমালোচনা করে তাকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান।

সন্দ্বীপ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি একেএম বেলায়েত হোসেন বলেন, নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কলঙ্কজনক উক্তি করেছেন। এই কলঙ্কজনক বক্তব্যের জন্য শাজাহান খানকে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানাচ্ছি। এই হত্যার বিচার যেন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে হয়, সেই দাবি জানাচ্ছি। হানিফ পরিবহনকে বলছি, অবিলম্বে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে দাঁড়ান। তাদের সহানুভূতি জানান। ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নিন।

সড়কে মানুষ মারা যাচ্ছে আর আমাদের মন্ত্রী শাজাহান খান হেসে হেসে কথা বলছেন। তার হাসি দেখে মনে হয়েছে তিনি জাতির সঙ্গে ঠাট্টা করছেন। তিনি শ্রমিক নেতা হয়ে সড়কের ঘাতকদের রক্ষাকবচ হবেন, জাতির সঙ্গে ঠাট্টা করবেন আর জনগণ তাকে বাহবা দেবে, এটা মনে করলে ভুল করছেন। দেশে প্রতিদিন গড়ে ১২ জন করে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাচ্ছেন। অথচ এসব ঘটনার কোন বিচার হচ্ছে না। এর ফলে সড়কে আইন না মেনে গাড়ি চালাতে প্রশ্রয় পাচ্ছেন চালকরা। এই সংস্কৃতি বন্ধ করতে হবে।

পায়েলের বাবা গোলাম মওলা বলেন, আমার ছেলে কোন অন্যায় করেনি। তার কোন অপরাধ ছিল না। বাসের ড্রাইভার-হেল্পাররা পরিকল্পিতভাবে আমার ছেলেকে হত্যা করেছে। আমার ছেলের হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবি আমি করছি।

কর্মসূচির সঞ্চালক ও দৈনিক সমকালের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সারোয়ার সুমন বলেন, পায়েলকে নৃশংসভাবে হত্যার বিচারের দাবিতে আমরা শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করে যাচ্ছি। আমরা কোথাও একটি ঢিলও ছুড়িনি। আমরা প্রশাসনের প্রতি আস্থাশীল। কিন্তু যারা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, সেই হানিফ পরিবহন এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ন্যূনতম সহানুভূতি পর্যন্ত দেখায়নি। সামান্যতম আন্তরিকতাও প্রদর্শন করেনি। আমরা হানিফ পরিবহনের বাস বর্জনের জন্য দেশের সাধারণ মানুষকে আহ্বান জানাচ্ছি।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ পঞ্চম সেমিস্টারের ছাত্র পায়েল চট্টগ্রামের হালিশহরের গোলাম মাওলার ছেলে। শনিবার রাতে হানিফ পরিবহনের (নং ৯৬৮৭) বাসে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় আসছিলেন। ভোর রাতে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া এলাকা থেকে তিনি নিখোঁজ হন। গত সোমবার (২৩ জুলাই) সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে গজারিয়া উপজেলার ভাটেরচর সেতুর নিচে খালে তার লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় তার মামা গোলাম সোরয়ার্দী বিপ্লব তিন জনকে আসামি করে গজারিয়া থানায় হত্যা মামলা করেন।

পরে পুলিশ হানিফ পরিচবহনের বাসের সুপারভাইজার জনিকে মঙ্গলবার রাতে ঢাকার মতিঝিল এলাকা এবং বুধবার ঢাকার আরামবাগ থেকে চালক জামাল হোসেন এবং হেলপার মো. ফয়সালকে গ্রেপ্তার করে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (২৬ জুলাই) চালক জামাল হোসেন মুন্সীগঞ্জের একটি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পুলিশের দেওয়া তথ্যমতে, চালক জানিয়েছেন- বাসের অটো দরজার সাথে ধাক্কা লেগে পায়েল রাস্তায় পড়ে যায়। এতে তার নাক মুখ দিয়ে রক্ত বের হতে থাকলে মারা গেছে ভেবে তাকে পাশের ভাটেরচর সেতু থেকে নিচের খালে ফেলে দিয়ে, তারা গাড়ি চালিয়ে ঢাকায় চলে আসেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত