প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইরানের ৭৫ শতাংশ নারী জোরপূর্বক হিজাবে বিশ্বাসী নয়: সংসদীয় জরিপ

ওমর শাহ: ইরানের শুধু ৩৫ শতাংশ নারী হিজাবে বিশ্বাস করেন। আর ৬৫ শতাংশ নারী জোরপূর্বক হিজাব পরিধান বিশ্বাস করেন না। অপরদিকে ৮৫ শতাংশ নারী আংশিক হিজাব পছন্দ করছেন। সম্প্রতি ইরানের পার্লামেন্টের অধীনে পরিচালিত গবেষণা কেন্দ্রের পক্ষ থেকে পরিচালিত একটি জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। খবর: আল আরাবিয়া

জরিপে বলা হয়, দেশের অধিকাংশ নারী এখন আংশিক হিজাবে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছে। যে হিজাবের মাধ্যমে শুধু চুলের কিছু অংশ ঢাকা যায়। তারা লম্বা পোশাকের সঙ্গে এ হিজাব পরিধান করেন। তবে বোরকা পরেন না। ৪৩ পৃষ্ঠার এ জরিপে আরও উল্লেখ করা হয়, হিজাবের ব্যাপারে সরকারের হস্তক্ষেপের বিরোধিতা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং আংশিক হিজাব প্রতিরোধে ধর্ম, সরকার ও প্রশাসন পরিপূর্ণ ব্যর্থ।

উল্লেখ্য, বছর পাঁচেক আগে ইরানে মাসিহ আলিনেজাদ নামে এক নারী দেশটিতে অভিনব এক আন্দোলন শুরু করেন। বাধ্যতামূলকভাবে হিজাব বা মাথা ঢাকার স্কার্ফ ব্যবহারের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেন তিনি। ইরানের আইনে স্পষ্ট করে বলা আছে, নারীদের মাথা এমনভাবে ঢাকতে হবে, যাতে চুল দেখা না যায়। আর পরতে হবে ঢোলা বোরকা, যা পা পর্যন্ত ঢেকে রাখবে।

ওই আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে মাথা থেকে হিজাব খুলে একটি লাঠিতে বেঁধে সেটি ওড়ানোর অপরাধে ২৯ নারীকে আটক করা হয়। হিজাব ওড়ানোর সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হয় ‘হোয়াইটওয়েনেসডেজ’ হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে।
এর ফলস্বরুপ সারাদেশ থেকে অসংখ্য নারী তাদের ছবি পোস্ট করতে থাকেন যেগুলোর বেশিরভাগই দেখা যায় মাথায় হিজাব নেই। সূত্র: আল আরাবিয়া

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ