প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘লাশের বিবরণ শুনে যে হাসে, তাকে মানুষ বলি কিভাবে?’

রবিন আকরাম : এয়ারপোর্ট রোডে বাসের নিচে পিষ্ট হয়ে দুই শিক্ষার্থী রাজীব-মীম নিহত হওয়ার ঘটনায় নৌপরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খানের হাসি’কে কেন্দ্র করে দেশ জুড়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। মন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে লেখক ও উন্নয়নকর্মী শেগুফতা শারমিন মন্তব্য করে বলেছেন, লাশের বিবরণ শুনে যে হাসে, তাকে মানুষ বলি কিভাবে?।

রোববার একটি অনলাইন পোর্টাল-এ এসব কথা লিখেছেন তিনি।

নৌপরিবহন মন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে শেগুফতা শারমিন আরো লিখেছেন, এয়ারপোর্ট রোডে মৃত রাজীব আর মিমের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সাংবাদিকের করা প্রশ্ন শুনে যখন কেউ একজন ফিক করে হেসে ওঠে, ক্রমে সে হাসি ছড়িয়ে পড়ে ঘি মাখন লাগা মুখমণ্ডলে। তখন কিছু প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাই। পেয়ে যেতে হয়। বুঝে যাই, ক্রমশ এখানে দুই দল প্রকাশ্য। একদল পিষ্ট হবে, মরে যাবে। আরেক দল হাসবে, আনন্দের হাসি, বিজয়ের হাসি। দুই দলের মাঝের বিভেদ রেখা ক্রমে উঁচু হবে, উঁচু থেকে আরো উঁচু হবে। একদল যেন শোষিত, আজন্ম ক্রীতদাস। এদের কোনো অধিকার থাকতে নেই, প্রয়োজন থাকতে নেই্। আরেক দল বিনাকষ্টে চিরস্থায়ী ইজারা নিয়ে বসে থাকবে মাথার উপর বছরের পর বছর। এক দলের কান্না পৌঁছবে না আরেক দলের কর্ণকুহরে। কুম্ভকর্ণরও ঘুম ভাঙে, ঘুম ভাঙে না কেবল আমাদের দ্বিতীয় দলের।

আমি নিশ্চিত, প্রতিদিন জীবন হাতের মুঠোয় নিয়ে চলছে যারা, তারা কেউ মানুষ নয়। মৌলিক প্রয়োজন বা অধিকার থেকে প্রতিনিয়ত বঞ্চিত হচ্ছে যারা, তারা আসলে মানুষ নয়। পথে পথে মরে থাকছে যারা, তারা কোনো মানুষ নয়। হঠাৎ করে নিরুদ্দেশ হয়ে যাচ্ছে যারা, তারাও মানুষ নয়। ক’দিন আগে কক্সবাজারের যে কাউন্সিলরের অডিও টেপ শুনলাম, তিনিও মানুষ ছিলেন না। মানুষ হলে জীবনের নিরাপত্তা থাকতো। মানুষ হলে তার কিছু মৌলিক অধিকার থাকতো। মানুষ হলে পথে পথে মরে থাকতে হতো না। মানুষ হলে বিনা বিচারে খুন হয়ে যেতে হতো না, হারিয়ে যেতে হতো না। আইন, নীতি, বিবেক বর্জিত সমাজে অসহায় দুপেয়েগুলো কেউ মানুষ নয়।

নিশ্চয় মানুষ নয় তারাও, একরামুলের বুকে যারা গুলি করেছিল। মানুষ নয় সেও, যে নিরুদ্দেশে চলে যাওয়াদের উদ্দেশ্যে বলে- তারা প্রেমে বা ব্যবসায় ব্যর্থ। রাজীব-রোজিনার মৃত্যুর দায় যারা তাদের কাঁধেই চাপায়, তারাই কি মানুষ? আর লাশের বিবরণ শুনতে শুনতে যে করে অট্টহাসি, তাকে মানুষ বলি কিভাবে? আসলেই কি আশপাশে চলে ফিরে বেড়াচ্ছে শোষক বা শোষিতের যেই দুপেয়ের দলবল, কোনো সংজ্ঞাতেই তারা আর মানুষের কাতারে পড়ে না। এদেশে শোষিতরাও মানুষের মর্যাদা পায়নি কোনোদিন। এদেশের শোষকরা মানুষ হতে পারেনি কোনোকালে। তাই আশপাশে যাদের দেখি, সেখানে মানুষ দেখি না। কারণ, মানুষগুলো অন্যরকম।

প্রসঙ্গত, ২৯ জুলাই দুপুরে ঢাকার বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাসের চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়৷  পরিবর্তন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ