প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচনের কি দরকার?

মাসুদ কামাল: খুলনা ও গাজীপুরের পর এবার একসঙ্গে তিনটি সিটি কারপোরেশনে নির্বাচন হলো। নির্বাচনগুলোর ফলাফল নিয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই। বক্তব্য দিয়ে সম্ভবত কোনো লাভও নেই। আমি বরং ভাবছি এসব স্থানীয় সরকারে নির্বাচনের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে। কি দরকার এই নির্বাচনের?

গত কয়েক বছর ধরেই আমরা স্থানীয় সরকারগুলোর নির্বাচন, এর ফলাফল এবং পরবর্তীকালে জনগণের প্রাপ্তির বিষয়গুলো দেখছি। কোথাও সরকারবিরোধী কোনো প্রার্থী জয়ী হলে, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর কি লাভ হয় জানি না, তবে অবধারিতভাবেই ওই এলাকায় মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। কোনো উন্নয়ন কার্যক্রমই আর আলোর মুখ দেখে না। বেশির ভাগ জায়গায় জনগণের ভোটে নির্বাচিত মেয়রকে মন্ত্রণালয়ের কলমের এক খোঁচায় সাসপেন্ড করা হয়, কোনো না কোনো এক রাজনৈতিক মামলায় জেলে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। মাঝখান থেকে মুখ থুবড়ে পড়ে ওই এলাকার উন্নয়ন। তাহলে এমন নির্বাচনের কি দরকার? বিরোধী দলের কেউ এলে যখন কোনো কাজ করার সুযোগই পাবেন না, তখন নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার চেষ্টাই-বা করা কেন? মাঝখান থেকে নির্বাচন কমিশনের কয়েকশ’ কোটি টাকা খরচ, প্রার্থীদের বিপুল অর্থের অপচয়, রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের হৈ-হুল্লোড় আর অভিযোগ পাল্টা-অভিযোগে কান ঝালাপালা।

এসবের বিপরীতে আমার একটা হাইপোথেটিক্যাল প্রস্তাব আছে। এত এত নির্বাচনের কোনো দরকার নেই। নির্বাচন দেশে প্রতি পাঁচ বছরে একবার হবে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচনের মাধ্যমে যারা ক্ষমতায় আসবেন, এসেই তারা স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন পদে নিজেদের পছন্দের মানুষকে মনোনয়ন দেবেন। এতে অভিযোগ, পাল্টা-অভিযোগের মাত্রাটা একটু কমবে, নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে জনগণের বিপুল অর্থের যে অপচয় হয়- সেটা কমবে। এলাকার মানুষ উন্নয়নের মুখ দেখবে। সর্বোপরি- জনগণের ভোটে নির্বাচিত হওয়ার অপরাধে কাউকে আর বারবার জেলে যেতে হবে না। এমনকি স্থায়ী নির্বাচন কমিশনেরও আমি কোনো প্রয়োজন দেখি না। গত কয়েকটি কমিশন তো দেখলাম, বিতর্কের ঊর্ধে কি কেউ ছিল? বরং বিরোধী দলগুলোকে দেখেছি কমিশনের সদস্যদের নিয়ে যা-তা বলতে। তাহলে এমন একটি প্রতিষ্ঠানের পিছনে নিয়মিত এত অর্থ ব্যয় করা কেন? তাই কেবল জাতীয় নির্বাচনের আগে আগে অনেকটা তত্ত্বাবধায়ক সরকারে আদলে একটা কমিশন গঠন করা যেতে পারে। এদের কাজই হবে একটি জাতীয় নির্বাচন করে দেওয়া। এর মাধ্যমে যারাই ক্ষমতায় আসবে, পরবর্তী পাঁচ বছরে যেখানেই নির্বাচনের প্রয়োজন, সেখানে তারা তাদের পছন্দের ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেবে। এতে আর কিছু না হোক, জনগণের অর্থের অপচয়টা বন্ধ হবে।
লেখক : সিনিয়র নিউজ এডিটর, বাংলাভিশন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ