প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফিলিস্তিনিদের স্বার্থের পরিপন্থী যুক্তরাষ্ট্রের কোনো শান্তি পরিকল্পনাকে স্বীকৃতি দেবে না সৌদি আরব

ইমরুল শাহেদ : আরব মিত্রদের গোপন নিশ্চয়তা দিয়ে সৌদি আরব বলেছে, পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী না করা হলে বা ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তনের নিশ্চয়তা না দিলে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনাকে স্বীকৃতি দেওয়া হবে না।
ইসরায়েলের দৈনিক হারেটজ দু’জন উর্ধ্বতন কূটনীতিকের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, সৌদি বাদশাহ সালমান ট্রাম্প প্রশাসনকে বলেছেন, ইসরায়েল-ফিলিস্তিন শান্তি পরিকল্পনাকে রিয়াদ ততক্ষণ পর্যন্ত সমর্থন দেবে না, যদি না তাতে পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত না করা হয়।
বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসকে ফিলিস্তিনের প্রতি বাদশা সালমানের সমর্থনের বিষয়টি পুনরায় নিশ্চিত করেছেন। রিয়াদে ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত বাসেম আল-আগা বলেছেন যে আব্বাসকে বাদশা বলেছেন, ‘আপনাকে আমরা পরিত্যাগ করব না। আমরা সেটাই গ্রহণ করব যা আপনারা গ্রহণ করবেন এবং আমরা সেটাই প্রত্যাখান করব যা আপনারা প্রত্যাখান করবেন।’
আল-আগা রয়টার্সকে আরও বলেছেন, বাদশা সালমান পরিস্কারভাবে ট্রাম্প প্রশাসনকে বলে দিয়েছেন যে জেরুজালেমের স্ট্যাটাস এবং ফিলিস্তিনের শরণার্থীদের তাদের বাড়িঘরে ফিরতে দিতে হবে, এ বিষয়টিই আরব লীগের ‘জেরুজালেম সম্মেলনে’ আলোচনা হয়েছে। একইসঙ্গে ফিলিস্তিনিদের জন্য ২০ কোটি ডলারের সহায়তা ঘোষণা করা হয়েছে। তবে উল্লিখিত প্রতিবেদন সম্পর্কে সৌদি কর্তৃপক্ষ সোমবার সন্ধ্যায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেননি।
এই প্রতিবেদনে দেখা যায়, সৌদি আরবের বর্তমান অবস্থান আগের অবস্থানের একেবারে বিপরীত। গণমাধ্যমের খবরে আগে বলা হয়েছিল, মার্কিন প্রেসিডেন্টের উর্ধ্বতন উপদেষ্টা জেরাড কুশনারের পরিকল্পনাকে সমর্থন করতে রিয়াদের কোনো আপত্তি থাকবে না। কুশনার এবং মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন দূত জেসন গ্রিণব্লাটের পরিকল্পনা যদি ফিলিস্তিনিরা গ্রহণ না-ও করে তাহলে তাদের সমর্থন থাকবে।
গত জুনে কুশনার বলেছিলেন, শান্তি পরিকল্পনা খুব শিগগিরই প্রকাশ করা হবে। তিনি এ ব্যাপারে মাহমুদ আব্বাসকে সহযোগিতা করতেও প্রস্তুত আছেন। স্পুটনিক