প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ট্রাম্প প্রথমে হুমকি দেন, পরে বৈঠকে আমন্ত্রণ জানান : ওয়েন্ডি শেরম্যান

রাশিদ রিয়াজ : সাবেক মার্কিন উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়েন্ডি শেরম্যান বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানি জনগণকে চিনতে ভুল করেছেন। ইরানের জনগণ কখনো হুমকি বা নিষেধাজ্ঞার কারণে নতি স্বীকার করে না। শেরম্যান রোববার ইয়াহু নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ইরানি জনগণের রয়েছে প্রতিরোধের সংস্কৃতি। তারা তাদের অধিকারের প্রশ্নে যেকোনো ছাড় দেয়াকে শত্রুর কাছে আত্মসমর্পন মনে করে।
তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পররাষ্ট্রনীতির সমালোচনা করে বলেন, ট্রাম্পের কূটনৈতিক পদ্ধতি হচ্ছে তিনি প্রথমে হামলার হুমকি দেন এবং এরপর বলেন, আসুন আমরা আলোচনায় বসে সিদ্ধান্ত নেই।
শেরম্যান অভিযোগ করেন, ট্রাম্পের আরেকটি বড় দুর্বলতা হচ্ছে, তিনি কোনো বিষয়ে সুস্পষ্ট নীতি গ্রহণ করে বিষয়টি নিয়ে লেগে থাকেন না। মৌখিক সমঝোতা যাতে বাধ্যতামূলক আন্তর্জাতিক চুক্তিতে পরিণত হতে পারে সেজন্য তিনি কোনো পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হচ্ছেন। উল্লেখ্য ইরানের সঙ্গে পাশ্চাত্যের পরমাণু সমঝোতার আলোচনায় অংশ নিয়েছিলেন শেরম্যান।
এর আগে সম্প্রতি শেরম্যান এনবিসি’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের হুমকিকে তার দুর্বলতার প্রমাণ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, ইরানি জনগণ হুমকির মুখে মাথা নত করবে না। ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন সরকারের বিদ্বেষী নীতি নতুন না হলেও ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর ওয়াশিংটনের তেহরান বিরোধী শত্রুতা বহুগুণে বেড়ে গেছে। তিনি গত মে মাসে ইরানের সঙ্গে পাশ্চাত্যের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে তার দেশকে বের করে নেন এবং তেহরানের বিরুদ্ধে ‘কঠোরতম’ নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দেন। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তার ওই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে নিন্দার ঝড় বয়ে যায়। পার্সটুডে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ