প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘জবাবদিহি কোনো বায়বীয় বিষয় নয়’

আলী রিয়াজ: জবাবদিহি কোনো বায়বীয় বিষয় নয়, এটা একাধারে প্রাতিষ্ঠানিক ও রাজনৈতিক। নির্বাহী বিভাগের জবাবদিহি কেবলমাত্র উল্লম্ব বা ভার্টিকাল বিষয় নয়। নিয়মিত নির্বাচন এই ধরণের জবাবদিহির একটি প্রাতিষ্ঠানিক দিক। কিন্তু যেনোতেনো নির্বাচনের মাধ্যমে তা অর্জন করা যাবে না; এমনকি কেবলমাত্র সফল অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনও এই জন্যে যথেষ্ট নয়, যদিও শেষোক্তটি একটি পূর্বশর্ত।

আনুভূমিক বা হরাইজেন্টাল জবাবদিহি হচ্ছে রাষ্ট্রের অন্য বিভাগগুলো – আইনসভা ও বিচার বিভাগ- যখন নির্বাহী বিভাগের ওপর নজর রাখে, নির্বাহী বিভাগের দায়িত্বহীনতা ও ক্ষমতার অপব্যবহারের রাশ টেনে ধরতে পারে। এগুলোর সুস্পষ্ট প্রাতিষ্ঠানিক রূপ আছে। সামাজিক জবাবদিহি হচ্ছে যখন রাষ্ট্রের ও রাজনৈতিক দলের বাইরে যে জনগোষ্ঠী – সিভিল সোসাইটি – যেভাবে নির্বাহী বিভাগ (এবং রাজনৈতিক দলসমূহের) ওপর নজর রাখে। যে রাষ্ট্রে এর কোনোটাই উপস্থিত নয়, যখন শাসন ব্যবস্থার ভিত্তিই জবাবদিহির উর্ধে তখন আলাদা করে একটা সেক্টরে জবাবদিহি থাকবে এমন মনে করার কারণ নেই। সেটা ব্যাংকিং সেক্টর, আইন শৃঙ্খলা সেক্টর, পরিবহন সেক্টর – যেই সেক্টরই দেখেন না কেন সেখানেই একই ধরণের দায়মুক্তি থাকবে; স্বর্ণ ও কয়লার দৃশ্যমান পার্থক্য আসলে কোনো ফারাক তৈরী করে না। জবাবদিহিহীন ব্যবস্থায় নাগরিকের মৌলিক দুটি অধিকার লাইফ এন্ড লিবার্টি – জীবন এবং মুক্তি/স্বাধীনতা – দুইই অপসৃত হবে| ‘লিবার্টি’ হচ্ছে কথা বলার অধিকার, সমাবেশের স্বাধীনতা, পছন্দ মতো ভোট দেয়া-না দেয়ার স্বাধীনতা। ফলে এইসব নিয়ে নেয়ার পর কে কীভাবে হাসলো সেই নিয়ে আলোচনা এক ধরণের আত্মতৃপ্তির ব্যবস্থা করতে পারে, কিন্তু তাতে এটা প্রমাণ হয়না যে আমরা এর কারণ উপলব্ধি করতে পেরেছি|

পরিচিতি: যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক। লেখাটি তাঁর ফেসবুক টাইমলাইন থেকে সংগ্রহীত।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত