প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টেলিফোনে অনেক কঠিন বরফও গলতে পারে: কাদের

ডেস্ক রিপোর্ট: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির সঙ্গে সংলাপের এখন আর সুযোগ নেই, এমনকি কোনো সম্ভাবনাও নেই। তবে তাদের সঙ্গে টেলিফোনে কথা হতে পারে। টেলিফোনে অনেক কঠিন বরফও গলতে পারে।
গতকাল দুপুরে সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সম্প্রতি ‘সংলাপের জন্য বিএনপি সব সময়ই প্রস্তুত রয়েছে’ বলে যে বক্তব্য দিয়েছেন তার জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো শর্ত দিলে ফোন দিতে রাজি নই। আমি কল করলে উনি (মির্জা ফখরুল) কল করবেন, ব্যাপারটা ‘শর্তযুক্ত’। এটা কোনো রাজনৈতিক ভাষা হতে পারে না। খবর: ইনকিলাব

তিনি আরো বলেন, ফখরুল সাহেবের সাথে আনঅফিসিয়ালি কয়েকবার দেখা হয়েছে। সেখানে আমি তাকে ‘ফখরুল ভাই’ সম্বোধন করে কথা বলেছি। তবে অফিসিয়ালি আলোচনা হয়নি।’

বিএনপির সঙ্গে সংলাপের বিষয়ে কিছু ভাবছেন কি না এমন প্রশ্নে ওবায়দুল কাদেরের বলেন, সংলাপের কোনো সুযোগ নেই, সম্ভাবনাও নেই । এ সময় কী সংলাপ করব? আর আমাদের দেশের বাস্তবতা এখন যা এখানে রাজনৈতিক অঙ্গনে কোনো সহিংসতা, হিংসা-বিদ্বেষ বা তিক্ততা এসব বিষয়ে ওপেন বহিঃপ্রকাশ এখন নেই। কাজে আলোচনাটা কেন?

তবে রাজনৈতিক সংলাপ না হলেও ব্যক্তিগতভাবে যোগাযোগ বাড়ানোর পক্ষে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, এটাতে অসুবিধা কী? তাহলেও তো অনেক কঠিন বরফও গলতে পারে। এসব যোগাযোগটা রাজনীতিতে কনফ্লিকটিকেট (বিরোধ) দূর করে। রাজনীতিতে সংঘাত বিদ্বেষগুলো পার্সোনাল (ব্যক্তিগত) যোগাযোগ থেকে দূর হতে পারে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচন কিভাবে হবে তা নির্ধারিত। নির্বাচনের বিষয়ে সংবিধানে যেমন উল্লেখ রয়েছে, তেমনি নির্বাচন কমিশনের কাজ কি হবে সেটাও উল্লেখ রয়েছে। সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন হবে। সংসদীয় রীতি অনুযায়ী অন্যান্য দেশে যেভাবে নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হয় আমাদের দেশেও তাই হবে।

তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন ভাল হবে।
কিন্তু বিএনপি যদি না জেতে তাহলে ভাল হবে না। আমি জানি না এই সংস্কৃতি থেকে তারা কবে বেরিয়ে আসবে। জিতলে ভাল, আর না জিতলে নির্বাচন ভাল নয়- এই সংস্কৃতি থেকে বিএনপিকে বেরিয়ে আসতে হবে বলেও মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।
আগামী জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জোটের আকার বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে কিনা জানতে চাইলে কাদের বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে কথাবার্তা হচ্ছে। তবে এখনও কোন কিছু চুড়ান্ত হয়নি।

সিপিবির সভাপতি মোজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের কথা উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সিপিবির নেতৃত্বাধীন ৮ দলীয় জোট আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতৃত্বাধীন কোন জোটে যোগ দেবে না বলে জানিয়েছে।
আগামী নির্বাচনে সিপিবি জোট অংশ নেবে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি, তারাও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি। এই চেতনাকে ধারণ করেই তারা আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে।

কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গেও কথা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করেই সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছেন। জাতীয় পার্টি মহাজোটে রয়েছে কিনা এ বিষয়ে তিনি বলেন, তারা (জাতীয়পার্টি) মহাজোটে আছে এবং থাকবে।
এলডিপি সভাপতি অলি আহমদের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোথাও তিনি সভা সমাবেশ করলে যেন তাকে জানানো হয়। এখন থেকে সভা সমাবেশ করতে ২০ দলীয় জোট ‘স্পেস’ পাবেন বলেও নিশ্চিত করে তিনি জানান, এটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ