প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তিন সিটিতে ভোট উৎসবের অপেক্ষা

সাইদ রিপন: রাত পোহালেই রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইতোমধ্যেই ভোটগ্রহণে কর্মকর্তাদের নিকট নির্বাচনী মালামাল বিতরণ করা হয়েছে। আগামীকাল সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১১ টি এবং রাজশাহী ও সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দুইটি ভোটকেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে।

সকল শ্রেণির ভোটারা যাতে নির্বিঘ্নে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন সেজন্য আগামীকাল তিন সিটিতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে ইসি।

নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব (জনসংযোগ) এসএম আসাদুজ্জামান স্বাক্ষিরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে রবিবার জানানো হয়। নির্বাচন কশিশন থেকে তিনজন নির্বাচন কমিশনার তিন সিটি নির্বাচন মনিটরিং করছেন। এর মধ্যে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বরিশাল , রফিকুল ইসলাম সিলেটে এবং ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহাদাত হোসেন চৌধুরী রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন মনিটরিং করছেন।

তিন সিটিতে নিরাপত্তা:

তিনটি সিটিতে নির্বচনী এলাকায় সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে বলে ইসির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। প্রতিটি সাধারণ ভোটকেন্দ্রে পুলিশ আনসারসহ ২২ জন এবং গুরুত্বপূর্ণ ভোটকেন্দ্রে ২৪ জন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে। প্রতিটি সাধারণ ওয়ার্ডে পুলিশ , এপিবিএন ও ব্যাটালিয়ান আনসারদের সমন্বয়ে মোবাইল টিম , প্রতি ওয়ার্ডে একটি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স, প্রতি সাধারণ ওয়ার্ডে র‌্যাবের একটি টিম, প্রতি দুইটি সাধারণ ওয়ার্ডে এক প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন থাকবে। মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স ভোটগ্রহণের আগের দুইদিন আগে থেকে মোতায়েন আছে তারা মোতায়েন থাকবে ভোটের পরেরদিন পর্যন্ত।

ভোটগ্রহনের আগের দুইদিন থেকে প্রতি ওয়ার্ডে একজন করে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আচরণবিধি প্রতিপালন নিশ্চিতকরণ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত থাকবে। তারা ভোটগ্রহনের পরের দুইদিন পর্যন্ত থাকবে। এছাড়া নির্বাচনী অপরাধসমূহ বিচারার্থে আমলে নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সিটি কর্পোরেশনের তিনটি সাধারণ ওয়ার্ডের জন্য একজন করে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানিয়েছে ইসি।

নির্বাচনী এলাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্য নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। গত ২৭ জুলাই দিবাগত মধ্যরাত থেকে নির্বাচনী এলাকায় বহিরাগতদের অবস্থান নিষিদ্ধ রয়েছে।

রাজশাহী সিটিকরপোরেশন –

রাজশাহী সিটিতে মোটসাধারণ ওয়ার্ড ৩০ টি। সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১০টি। ভোটার ৩ লাখ ১৮হাজার ১৩৮ জন। এরমধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৫৬হাজার ৮৫ জন ও মহিলা১ লাখ ৬২ হাজার৫৩জন। ভোট কেন্দ্র১৩৮টি ও ভোট কক্ষ ১হাজার ২৬টি। এ সিটিতেমেয়র প্রার্থী মোট ৫ জন।

মেয়র প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগের এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-নৌকাপ্রতিক, বিএনপিরমোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল-ধানের শীষ প্রতিক, বাংলাদেশজাতীয় পার্টির হাবিবুররহমান- কাঁঠাল প্রতিক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সফিকুলইসলাম- হাতপাখা প্রতিক, ও স্বতন্ত্র মুরাদমোর্শেদ-হাতী প্রতিক।

বরিশাল সিটিকরপোরেশন –

বরিশাল সিটিতে মোটসাধারন ওয়ার্ড ৩০ টি। সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১০টি। ভোটার ২ লাখ ৪২হাজার ১৬৬ জন। এরমধ্যে পুরুষ ১ লাখ ২১হাজার ৪৩৬ জন ও মহিলা ১ লাখ ২০ হাজার৭৩০ জন। ভোট কেন্দ্র১২৩টি ও ভোট কক্ষ৭৫০টি। এ সিটিতে মেয়রপ্রার্থী মোট ৭ জন।

মেয়র পদে আওয়ামীলীগ প্রার্থী সেরনিয়াবাতসাদিক আব্দুল্লাহ- নৌকাপ্রতিক, বিএনপি প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার- ধানের শীষ প্রতিক, জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইকবাল হোসেন তাপস-লাঙ্গল প্রতিক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মাওলানা ওবায়দুররহমান মাহাবুব-হাতপাখা প্রতিক, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের প্রার্থী মনীষা চক্রবর্তী- মই প্রতিক, বাংলাদেশ কমিউনিষ্ট পার্টির প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ-কাস্তে প্রতিক , হরিণ প্রতিকে বশির আহমেদ ঝুনু স্বতন্ত্র প্রার্থী।

সিলেট সিটিকরপোরেশন :-

সিলেট সিটিতে মোটসাধারণ ওয়ার্ড ২৭ টি। সংরক্ষিত ওয়ার্ড ৯ টি। ভোটার ৩ লাখ ২১হাজার ৭৩২ জন। এরমধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৭১হাজার ৪৪৪ জন ওমহিলা ১ লাখ ৫০ হাজার২৮৮ জন। ভোট কেন্দ্র১৩৪টি ও ভোট কক্ষ ৯২৬টি। এ সিটিতে মেয়র প্রার্থী মোট ৭ জন।

সিলেট সিটিতে মেয়র পদে সাত প্রার্থী হলেন- বদরউদ্দিন আহমদ কামরান (আওয়ামী লীগ) নৌকাপ্রতিক, আরিফুল হক চৌধুরী (বিএনপি) ধানের শীষ প্রতিক, বদরুজ্জামান সেলিম (স্বতন্ত্র) বাস প্রতিক, এহসানুল মাহবুব জুবায়ের (স্বতন্ত্র) টেবিলঘড়ি প্রতিক, ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন (ইসলামী আন্দোলন) হাতপাখা প্রতিক, এহসানুল হক তাহের (স্বতন্ত্র) হরিণ প্রতিক, আবু জাফর (সিপিবি-বাসদ)মই প্রতিক।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ