প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা দীর্ঘ ৭ বছরেও বাস্তবায়িত না হওয়ার প্রতিবাদে
মানববন্ধন ও প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের নিকট স্মারকলিপি পেশ ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের

জীবন সাহা:  ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের পেশাগত সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর সুষ্পষ্ট নির্দেশনা দীর্ঘ ৭ বছরে বাস্তবায়িত না হওয়ার প্রতিবাদে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সম্মুখে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ডিপ্লোমা প্রকৌশলীবৃন্দ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা (প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের স্মারক নং২১৭ তারিখ ১৬-৪-২০১২, (অংশ-৩) ২০১৭ তারিখ ২১-১১-২০১২, ২৫৩ তারিখ ৫-১২-২০১২,২৬৪ তারিখ ১৯-১২-২০১২ ও ১৪২ তারিখ ১৩-৫-২০১৮) ও আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটির সুপারিশ অনুসারে বিতর্কিত ঢাকা ইমারত নির্মাণ বিধিমালা ২০০৮ ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল বির্ল্ডিং কোড ২০১৫ এর সংশোধিত গেজেট প্রকাশ এবং অন্যান্য পেশাগত দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ার প্রতিবাদে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

রোববার (২৯ জুলাই) বেলা ১২ থেকে ১ টা পর্যন্ত পরিষদের আহ্বায়ক মোঃ ফজলুর রহমান খানের সভাপতিত্বে কর্মসূচিতে বক্তাগণ বলেন, সরকারের ভেতরে ঘাপটি মেরে থাকা অদৃশ্য শক্তির কারসাজিতে ন্যায্য দাবি বাস্তবায়িত না হওয়াটা অত্যন্ত হতাশাজনক। এ ধরনের ষড়যন্ত্র দেশের প্রকৌশল অঙ্গনকে উত্তপ্ত করবে বলে তারা হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন। নেতৃবৃন্দ বলেন, কোন ষড়যন্ত্রই ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের ন্যায্য দাবির আন্দোলন থামাতে পারবে না। অতীতে কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে সকল ন্যায্য দাবি আদায় করা হয়েছে, আগামীতেও এর ব্যত্যয় ঘটবে না।

উল্লেখ্য, ৩ দফা দাবির অন্যতম হচ্ছে-চাকরির প্রাথমিক নিযুক্তিতে ডিগ্রি প্রকৌশলীদের ন্যায় ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের একটি অগ্রিম বর্ধিত বেতন প্রদান, ডিজাইন ও প্ল্যানিং-এ কর্মরত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার উপ-সহকারী প্রকৌশলীকে সহকারী প্রকৌশলীদের ন্যায় ৩টি অতিরিক্ত বর্ধিত ইনক্রিমেন্ট ব্যক্তিগত ভাতা হিসেবে প্রদান, উপ-সহকারী প্রকৌশলী/সমমানের পদ থেকে সহকারী প্রকৌশলী/সমমানের পদের পদোন্নতির কোটা ৫০% এ উন্নীত করা, আন্তর্জাতিক ইঞ্জিনিয়ারিং কনসেপ্ট অনুযায়ী ১:৫ হারে সেটআপ প্রণয়ন এবং প্রাইভেট সেক্টরে কর্মরত ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জাতীয় বেতন স্কেলের সাথে সামঞ্জস্য রেখে বেতন স্কেল ঘোষণা করা।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সদস্য সচিব মো: সিরাজুল ইসলাম, সওজ ডিপ্রকৌস এর সভাপতি মোঃ আব্দুন নুমান, বাপশিসের সভাপতি হাফিজ আহমেদ সিদ্দিকী, ঢাকা ওয়াসা ডিইএ’র সভাপতি আঃ মান্নান, বিউবো ডিপ্রকৌস এর সভাপতি মোঃ আবুল কালাম আজাদ আখন্দ, পিজিসিবি ডিপ্রকৌসের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মোঃ ইলিয়াস, ডিপিডিসি ডিপ্রকৌস’র সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান খান, ডেসকো ডিপ্রকৌস’র সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম শিমুল, সওজ ডিপ্রকৌসের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মুন্তাসীর হাফিজ, ইইডি ডিপ্রকৌস’র সভাপতি মোঃ আলতাফ হোসেন, বঙ্গবন্ধু পিডব্লিউডি ডিপ্রপ’র সাধারণ সম্পাদক মির্জা এটিএম গোলাম মোস্তফা, রেলওয়ে ডিপ্রকৌসের সভাপতি দীপক কুমার ভৌমিক, ঢাকা ওয়াসা ডিইএ’র সাধারণ সম্পাদক আরমান ভূঁইয়া, জনশক্তি ডিপ্রকৌসের মীনা পারভীন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ বলেন, মানববন্ধনের পরও যদি দাবি বাস্তবায়নের নির্দেশনা জারি না হয় তাহলে কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

কর্মসূচি শেষে বেলা ১.৩০মিনিটে কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক মোঃ ফজলুর রহমান খান ও সদস্য সচিব মোঃ সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন। এছাড়া পৃথক ৫টি দল অর্থমন্ত্রী, জনপ্রশাসন মন্ত্রী, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী ও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর দপ্তরে উপস্থিত হয়ে দাবির স্বপক্ষে স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ