প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কেমন ছিলেন বাদশাহ আলতামাশ রহ.?

মুনশি মুহাম্মদ আবু দারদা: তিনি ছিলেন সেই যামানার অনেক বড় একজন বযুর্গ- আল্লাহওয়ালা। যার জিন্দেগীতে কোনোদিন আসরের চার রাকাত সুন্নাত নামাজও ছুটেনি। যিনি কোনদিন গাইরে মাহরামের দিকে ইচ্ছাকৃত গোনাহর নজরে তাকাননি। যিনি তাকবির উলা ছাড়া কোন ফরয নামাজ পড়েননি। যিনি কোনদিন তাহাজ্জুদের নামাজ মিস করেননি। সব সময় নিজের আমলকে গোপন রেখেছিলেন কিন্তু শেষ বয়সে প্রকাশ করতে বাধ্য হয়েছিলেন। বাদশাহ বখতিয়ার কাকীর রহ.জন্য।

হযরত কুতুবুদ্দীন বখতিয়ার কাকী রহ. ইন্তেকাল করার পর বিশাল মাঠে জানাযার আয়োজন করা হলো। হাজারো লাখো মানুষের উপস্থিত। জনসমুদ্রে পরিণত হলো মাঠ। জানাযার সময় হলে একজন ঘোষক ঘোষণা করলেন, হযরত বখতিয়ার কাকী রহ. ইন্তেকালের পূর্বে আমাকে ওসিয়ত করে গেছেন, যার মাঝে চারটি গুণ থাকবে তিনি যেন বখতিয়ার কাকী রহ. এর জানাযা পড়ান। যদি এমন চারটি গুনওয়ালা ব্যক্তি না পাওয়া যায় তাইলে বিনা জানাযায় দাফন করবে।

গুণ চারটি হলো:
১. যার জীবনে কোনদিন তাকবীরে উলা ছোটেনি। ২. যার কোনদিন তাহাজ্জুদ কাযা হয়নি। ৩. যে কোনদিন গায়রে মাহরামের দিকে বদনজরে তাকাননি । ৪. এমন ইবাদতগুযার, যার কোনদিন আসরের সুন্নতও ছোটেনি।

একথা শোনার পর পুরো মাঠে নিরবতা ছেয়ে গেলো। সবাই নিস্তব্ধ। কে আছেন এমন? কাউকে পাওয়া যায়না সবাই পেরেশান তাইলে বাদশাহ কুতুবদ্দীন কাকীকে বিনা জানাযায় দাপন করতে হবে নাকি? এভাবেই কেটে গেলো বেশ কিছুক্ষণ। এরপর ভীড় ঠেলে কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে এলেন একজন। সবার দৃষ্টি তাঁর দিকে। ধীরে ধীরে জানাযার দিকে এগিয়ে এলেন। লাশের মুখ থেকে চাদর সরিয়ে বললেন, কুতুবুদ্দীন ! তুমি নিজে তো চলে গেলেন। কোনদিন নিজের আমল দুনিয়াতে প্রকাশ করিনি। শেষ মুহুর্তে জানাযার আগে আমার আমলগুলি মানুষের সামনে প্রকাশ করে দিয়ে গেলেন। আমাকে অপদস্ত করে গেলেন। তারপর তিনি জনসম্মুখে আল্লাহ তা‘য়ালাকে সাক্ষী রেখে কসম খেয়ে বললেন, আমার মাঝে এই চারটি গুণ আছে। জনতা বিস্ময়ে হতবাক হয়ে গেলো। আরে!! ইনি কে? তিনি আর কেউ নয়। তিনি হলেন তৎকালীন বাদশাহ শামসুদ্দীন আলতামাশ (র.)।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ