প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শক্তিশালী ডলারের ওপরই নির্ভর করছে মার্কিন অর্থনৈতিক প্রভুত্ব

নূর মাজিদ: চলতি বছর মার্কিন পুঁজিবাজার বিশ্বের অন্যান্য বাজারগুলোরের চাইতে এগিয়েই থাকবে। মার্কিন অর্থনীতির বিশ্বব্যাপী প্রভুত্বের মূল চালিকাশক্তি হলো দেশটির শক্তিশালী পুঁজিবাজার। মার্কিন পুঁজিবাজারের উত্থান-পতনেই আন্দোলিত হয় বিশ্বের অন্যান্য পুঁজিবাজার। বর্তমানে মার্কিন পুঁজিবাজারের শক্তিশালী অবস্থানের কারণ দেশটির মুদ্রা ডলারের শক্তিশালী অবস্থান।

সাম্প্রতিক সময়ে ফেডারেল রিজার্ভের সুদের হার বৃদ্ধি এবং ট্রাম্পের কর রেয়াতের ঘোষণার প্রেক্ষিতে মার্কিন পুঁজিবাজারেও বিনিয়োগের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। কারণ নতুন কিছু নয়। মার্কিন ডলারের শক্তিশালী অবস্থান এখন দেশটির বাজারে বৃহৎ বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ধরে রাখতে সমর্থ হয়েছে। এমনকি চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে শক্তিশালী পুঁজিবাজারের অবস্থান দেশটির জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৪.১ শতাংশে উন্নীত করেছে। তবে দীর্ঘমেয়াদে যুক্তরাষ্ট্রের নিজস্ব অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং তার বিশ্বব্যাপী প্রভুত্বের চাবিকাঠি নিহিত ডলারের ভবিষ্যতের ওপর।

এই বিষয়ে মার্কিন পুঁজিবাজার বিশ্লেষক ও কৌশল প্রণয়নকারী ক্রিস্টিনা হুপার বলেন, মার্কিন অর্থনীতির বর্তমান প্রবৃদ্ধি ও পুঁজিবাজারের শক্তিশালী অবস্থান শুধু যুক্তরাষ্ট্রের উন্নতির সুচকই নয়, একই সঙ্গে তা বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের সঙ্গে মার্কিন অর্থনীতির তূলামূলক এগিয়ে থাকার সূচক।

হুপার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, বিনিয়োগকারীরা এখন আশা করছেন মার্কিন ডলারের শক্তিশালী অবস্থান দেশটির বাজারে বিনিয়োগের জন্য অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করেছে, তাই তারা বিনিয়োগে আগ্রহী হচ্ছেন। প্রাথমিক পর্যবেক্ষণে এটি নিশ্চিত যে চলতি বছর মার্কিন অর্থনীতি বিশ্বের অন্যান্য অর্থনীতিকে নেতৃত্ব দেবার অবস্থানেই থাকবে।

তবে একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাৎসরিক মোট সেবা ও পণ্য (জিডিপি) উৎপাদনের হার বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে স্তিমিত হয়ে পড়ার পূর্বাভাষ দিয়েছে আইএমএফ। সংস্থাটি জানায় চলতি বছরের বাকি দুটি প্রান্তিকে মার্কিন অর্থনীতি ৩ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি ধরে রাখবে। ফলে, উৎপাদন এবং রপ্তানি কমে আসার প্রেক্ষিতে ডলারের বর্তমান অবস্থানও পরিবর্তিত হবার সম্ভাবনায় রয়েছে। রয়টার্স

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ