প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মিলিত হচ্ছে ২০০১ সালে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থীরা!

ইফ্ফাত আরা: “এসএসসি প্রজন্ম ২০০১ বাংলাদেশ” নামের একটি ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে সারা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রজন্ম ২০০১ এর সকলকে এক করার চেষ্টা করছে। গতকাল রাজধানীর পলাশীর মোড়ের ফ্রেপড সেমিনার হলে একটি সাধারণ মিটিং আয়োজন করে এই গ্রুপের সদস্যরা। যেখানে বিভিন্ন পেশার, বিভিন্ন জেলার দেড় শতাধিক বন্ধু একত্রিত হয়ে মত বিনিময় করেন।

উক্ত মিটিং এ ২০০১ সালে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আয়োজনের প্রস্তাব করেন সদস্যরা। পাশাপাশি আসন্ন কোরবানির ঈদের পর একটি পুনর্মিলনী আয়োজনেরও প্রস্তাব করা হয়। মত বিনিময় অনুষ্ঠানে সারা দেশের বন্ধুদের একত্রিত করে দেশ ও সমাজের উন্নয়নে নানা ধরনের উদ্যোগ নেওয়ার ঘোষণা দেন অংশগ্রহণকারী ২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা বলেন, শুধু সফলতার গল্প নয়, প্রজন্ম ২০০১ এর বন্ধুরা পিছিয়ে পড়া বন্ধুদের সাথে নিয়েই সামনে এগোতে চায়। তারা বলেন, একটি প্রজন্ম চাইলে সমাজের চেহারা বদলে দেওয়া সম্ভব। বর্ষাকাল শেষ হলেই ক্রিকেট টুর্নামেন্ট শুরু করা হবে বলে জানান গ্রুপের সদস্যরা। তারা আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে সারা দেশের বন্ধুদের জানানোর প্রক্রিয়া চলছে। আপাতত ঢাকা সিটি ও পাশ্ববর্তী এলাকা যেমন উত্তরা, টঙ্গী, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জসহ বেশ কিছু এলাকা থেকে ক্রিকেট দল গঠনের প্রক্রিয়া চলছে। পাশাপাশি সারা দেশের অন্যান্য জেলার বন্ধুদেরকেও নিজ নিজ জেলার ক্রিকেট দল গঠনের জন্য অনুরোধ জানান আলোচকরা।

মত বিনিময়ের অনুষ্ঠানটিতে জিহ্বার ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করা ২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থী নয়নের পরিবারের পাশে দাঁড়ায় এই গ্রুপের সদস্যরা। প্রয়াত নয়নের বড় বোনের জন্য চাকুরির ঘোষণা দেন নয়নের বন্ধুরা। গ্রুপের সদস্যরা বলেন, প্রয়াত নয়নকে অনেকেই সামনাসামনি দেখেনি, কিন্তু ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পেরে সবাই তাকে বন্ধু ভাবতে বা তার পাশে দাঁড়াতে দ্বিধা বোধ করেনি। এখন তারা নয়নের মৃত্যুর পর অভিভাবকহীন হয়ে পড়া নয়নের মা ও বোনকে সব দিক থেকে সহযোগিতার ঘোষণা দিয়েছেন।


‘এসএসসি প্রজন্ম ২০০১ বাংলাদেশ’ এর আহ্বানে ঈদ পুনর্মিলনীর জন্যেও বেশ বড়সড় প্রস্তুতির ঘোষণাও দেন গ্রুপের স্বেচ্ছাসেবক যমুনা টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার শওকত মঞ্জুর শান্ত। তিনি বলেন, ‘যে প্রজন্মের হাত ধরে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা গ্রেডিং সিস্টেমে (জিপিএ) প্রবেশ করছে, তরাই এখন দেশের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে চলেছে। এই বন্ধুদের একসাথে নিয়ে চাইলেই যে কোন ক্ষেত্রে ভালো উদাহরণ সৃষ্টি করা সম্ভব। বন্ধুত্বের বন্ধনকে আরো দৃঢ় করে আমরা পাশে দাঁড়াতে চাই সমাজের প্রতিটি অসহায় মানুষের। প্রতিটি ভালো কাজে এসএসসি প্রজন্ম ২০০১ বাংলাদেশ এর বন্ধুরাই সবার আগে থাকতে চাই। ’ ২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া সারা দেশের বন্ধুদের এই ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিতে আমন্ত্রণ জানিয়ে শান্ত আরও বলেন, ‘সবাই মিলে চেষ্টা করলে ২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া প্রায় আট লাখ বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ রাখা সম্ভব। যার ফলে শুধু নিজেদের যে কোন প্রয়োজনেই নয়, দেশের যে কোন দুর্যোগ, জরুরী মূহুর্তে জাতির জন্য সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করতে পারবে।’ এ সময় তিনি আসন্ন ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ও ঈদ পুনর্মিলনীতে অংশ নিতে ২০০১ প্রজন্মের বন্ধুদের “এসএসসি প্রজন্ম ২০০১ বাংলাদেশ” গ্রুপে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানিয়ে বক্তব্য শেষ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ