প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ক্রিকেট আর দেশ চালানো এক নয়: ইমরানকে আজহার

স্পোর্টস ডেস্ক: পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন দেশটির সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান। ১৯৯২ সালে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে বিশ্বকাপ জিতিয়েছিলেন ইমরান। তবে ক্রিকেটের মাঠে দল পরিচালনা এবং দেশ চালানো কখনোই এক ব্যাপার নয় বলে ইমরানকে স্মরণ করে দিয়েছেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার আজহার উদ্দিন।

ইমরানকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ”নিজের অভিজ্ঞতা থেকে শুরুতেই একটা কথা বলতে পারি। ক্রিকেট মাঠ আর রাজনীতির ময়দানÑ দু’টো কিন্তু সম্পূর্ণ আলাদা মঞ্চ।”

তিনি বলেন, ”ইমরান খান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন দেখে ক্রিকেট মহলে হয়তো অনেকে খুশি। আমিও অভিনন্দন জানাচ্ছি ওকে। পাশাপাশি, অনুজ ক্রিকেটার এবং রাজনীতিবিদ হিসেবে একটা কথা মাথায় রাখার পরামর্শ দেব। একটা ক্রিকেট দলের ক্যাপ্টেন্সি করা আর দেশকে নেতৃত্ব দেওয়া কিন্তু এক নয়।”

তিনি আরও বলেন, ”ইমরান নিজে ক্রিকেট জীবনে খুব ভাল ক্যাপ্টেন তো ছিলেনই। দারুণ বোলারও ছিলেন। বিশেষ করে ওর ইনডিপারগুলো খেলতে ব্যাটসম্যানেরা সব চেয়ে সমস্যায় পড়ত। পায়ের দিকে যে বলগুলো গোত্তা খেয়ে এসে ঢুকত। প্রধানমন্ত্রী ইমরানের দিকে কিন্তু এ রকম অনেক মারণ ডেলিভারি ধেয়ে আসবে। সেগুলোকে কী ভাবে উনি সামলান, সেটাই ঠিক করে দেবে ওর ভাগ্য।”

ইমরানের রাজনীতি সম্পর্কে আজহার বলেন, ”আমি রাজনীতির মাঠের নেতা ইমরানের কথা বলতে পারব না। কারণ, ওই দিকটা আমি দেখিনি। মাঠে দাঁড়িয়ে প্রতিপক্ষ ক্যাপ্টেন হিসেবে ওকে দেখেছি। খুবই স্পোর্টিং ছিলেন। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে এত ধুন্ধুমার ব্যাপার থাকে। দু’দেশের মানুষ সব কিছু ছেড়ে এই একটা ম্যাচে জিততে চায়। বিশ্বকাপের মতো আসরে গিয়ে দেখেছি, মানুষ চাইছে, কাপ না জিতলেও চলবে। পাকিস্তানকে হারাও। ব্যাটসম্যান এবং অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বকাপে বেশির ভাগ ম্যাচে আমার সময়ে পাকিস্তানকে হারিয়েছি। নানা প্রতিক্রিয়া দেখেছি ম্যাচের পরে।”

আজহার বলেন, ”কিন্তু ইমরান আপসহীন প্রতিদ্বন্দ্বী হলেও কখনও সৌজন্য হারাননি। ভাল ইনিংস খেললে আমাকে অনেক বারই মাঠের মধ্যে অভিনন্দন জানিয়েছেন। শুধু আমাকে নয়, অনেক বারই দেখেছি ভারতের ক্রিকেটার সেঞ্চুরি করলে বা মাইলস্টোন পৌঁছলে ইমরান হাততালি দিয়েছেন বা এসে হাত মিলিয়ে গিয়েছেন।”

স্মৃতিচারণ করে আজহার বলেন, ”আমাদের সময়কার খুব জনপ্রিয় তারকা ছিলেন ইমরান। ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেটে স্মরণীয় এক চরিত্র। বিশ্ব ক্রিকেটে ওর কথার ওজনও ছিল অনেক। তাই ওর প্রশংসা পেলে তরুণ ক্রিকেটারদের কেরিয়ারে নতুন দিগন্ত খুলে যেত। প্রতিপক্ষ দলের হলেও তরুণদের প্রশংসা করা থেকে কখনও পিছিয়ে থাকেননি। ১৯৯২ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আমি ইমরানকে পিটিয়ে রান করেছিলাম। তার পরে কিন্তু কটাক্ষ বা স্লেজিং করতে দেখিনি ওকে। বরং প্রশংসাই করেছিলেন।”

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ইমরানের সম্পর্কে আজহার বলেন, ”পাক সেনাই ইমরানকে পরিচালনা করবে কি না, সেই সব তর্কে এত দূরে বসে মন্তব্য করা কঠিন। তবে একটা কথা বলব, ক্রিকেট মাঠে দাঁড়িয়ে ইমরান তার নিজের সিদ্ধান্ত নিতেন। কারও সাহস হত না মাঝখানে আসার। প্রধানমন্ত্রী ইমরান নিজের সিদ্ধান্ত নিতে পারেন কি না, তা দেখার অপেক্ষায় থাকলাম। যদি পারেন, ক্রিকেটের মতোই পাকিস্তান পাবে ভাল এক ‘ক্যাপ্টেন’!”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ