প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দেশের মানুষ চায় খুনী-অপরাধী ও জঙ্গিমুক্ত রাজনীতি : তথ্যমন্ত্রী

রফিক আহমেদ : তথ্যমন্ত্রী ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, দেশের মানুষ চায় খুনী-অপরাধী ও জঙ্গিমুক্ত রাজনীতি। আর বিএনপি-রাজাকার-জঙ্গি-জামায়াত চক্রের এই ষড়যন্ত্রকারীরা গণতন্ত্র ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দোহাই দিয়ে রাজনীতির মাঠ সমতল করার নামে কারাগার ও আদালত গুঁড়িয়ে দিয়ে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দিতে চায়।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলা সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ময়দানে জাসদ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বিএনপি-খালেদাচক্র রাজনীতির মাঠ সমতল করার নামে কারাগার ও আদালত গুঁড়িয়ে দিয়ে জঙ্গি-রাজাকার-অপরাধীদের সুযোগ করে দিতে চাচ্ছে। দেশের স্বার্থে ও মানুষের কল্যাণে এই চক্রান্ত রুখতে হবে। আদালত-কারাগার গুঁড়িয়ে রাজনীতিকে জঙ্গি-রাজাকারের মাঠ বানাবার চক্রান্ত রুখে দিন। রাজনীতির তথাকথিত এই সমতল মাঠে জঙ্গি-রাজাকার-অপরাধীরা নির্বিঘেœ তাদের ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে চায়। এই প্রস্তাব আসলে গণতন্ত্র গুঁড়িয়ে দেয়ার চক্রান্ত। জঙ্গি-রাজাকার-অপরাধীদের সুযোগ দেয়ার চক্রান্ত।

জাসদ সভাপতি বলেন, সামনের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আবার ষড়যন্ত্র চক্রান্তকারীরা মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে। নির্বাচনে আসা না আসা নিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ নানা শর্ত আরোপ করছে, যা আসলে নির্বাচন বানচালেরই ষড়যন্ত্র। একইসঙ্গে দেশের যুগান্তকারী পরিবর্তন ও উন্নয়ন থমকে দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে তারা।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজনীতির মাঠ থেকে জঙ্গি-রাজাকার-অপরাধীদের আগাছা দক্ষ হাতে পরিস্কার করছেন, রাজনীতির এই পরিস্কার মাঠের পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখাই আমাদের অঙ্গীকার। গত দশ বছরে দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়নগুলো সাধিত হয়েছে। এর পেছনে ছিল দু’টি মূল শক্তি। এক, শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও দুই, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তির ঐক্য। আমাদের কাজ হচ্ছে, এই উন্নয়নকে ধরে রাখা, টেকসই করা, যাতে দেশ আর পেছনে না যায়। আর তা করতে হলে যারা পেছন থেকে টানে তাদেরকে সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস ও নির্মূল করতে হবে।

জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার এমপি, নবীনগর আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জাসদ নেতা অ্যাডভোকেট শাহ জিকরুল আহমেদ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপচার্য ড. আনোয়ার হোসেন, জাসদ নেতা সাখাওয়াৎ হোসেন রাঙা, ওবায়দুর রহমান চুন্নু, শওকত রায়হান, বীরমুক্তিযোদ্ধা শফিউদ্দিন মোল্লা, নূরুল আমিনসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ সভায় বক্তৃতা করেন।