প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারত সবসময়ই বাংলাদেশে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন প্রত্যাশা করে : জাপা মহাসচিব

রফিক আহমেদ : জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি জানিয়েছেন, তার দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ভারত সফরে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেছেন, বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ যেন বজায় থকে। ভারত সবসময়ই বাংলাদেশে সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে একটি সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন প্রত্যাশা করে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় রাজধানীর বনানীতে পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জাপার মহাসচিব এসব কথা জানান।

এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার জানান, দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ভারত সফরে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেছেন, বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে তাদের নৈতিক সমর্থন সবসময় অব্যাহত থাকবে এবং ভারত সবসময়ই বাংলাদেশে সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে একটি সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন প্রত্যাশা করে।

জাপা মহসচিব জানান- ভারতীয় নেতারা জানিয়েছেন, তাদের সরকার এবং জনগণ বাংলাদেশের সঙ্গে বিরাজমান সু-সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় দেখতে চায়। তারা একান্তভাবে প্রত্যাশা করেছেন, বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ যেন বজায় থকে। তারা আরও বলেছেন, ভারত সবসময়ই বাংলাদেশে সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে একটি সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন প্রত্যাশা করে। ভারতের নেতারা বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষায় জাতীয় পার্টির ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

রুহুল আমিন হাওলাদার জানান, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বে আমরা পার্টির ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি সফর করেছি। সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের সঙ্গে এই সফরে তার সঙ্গী হিসেবে ছিলামÑ আমি পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এবং প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, সুনীল শুভরায় ও মেজর (অব.) মোঃ খালেদ আখতার। আমরা ২২ জুলাই বেলা ১টায় নয়াদিল্লীতে পৌঁছেছি এবং গত বুধবার বিকেল ৪টায় ঢাকা ফিরে এসেছি। আমাদের এই ভারত সফর নিয়ে দেশে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে এবং অনেক জল্পনা-কল্পনারও সৃষ্টি হয়েছে।

জাপার মহাসচিব জানান, জাতীয় পার্টি সবসময় প্রতিবেশী দেশসহ বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশ এবং ভ্রাতৃপ্রতিম মুসলিম দেশসমূহের সঙ্গে সুসম্পর্ক রক্ষার নীতিতে বিশ্বাস করে। গত ১৭ জুলাই মঙ্গলবার বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার শ্রী হর্ষবর্ধন শ্রিংলা চেয়ারম্যানের বাসভবনে গিয়ে তাকে ভারত সফরের জন্য আমন্ত্রণ জানান। সেই আমন্ত্রণে আমরা নয়াদিল্লি সফর করেছি। এই সফরটি ছিলো আমাদের জন্য অত্যন্ত সম্মানের এবং গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ২২ জুলাই তারিখে নয়াদিল্লি পৌছানোর পর বিকাল ৪টায় ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মিঃ রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে তার বাসভবনে বৈঠকে মিলিত হয়েছি। এক ঘন্টারও অধিক সময় আমরা পারস্পারিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে কথা বলেছি। পরের দিন অর্থাৎ ২৩ জুলাই দুপুর দেড়টায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিসেস সুষমা সরাজের সঙ্গে আমাদের ঘন্টাব্যাপী বৈঠক হয়েছে। এরপর সন্ধ্যা ৬ ঘটিকায় ভারতের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা মিঃ অজিত দোভালের সঙ্গে তার বাসভবনে আমাদের বৈঠক হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- জাপা কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, সুনীল শুভ রায়, হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, উপদেষ্টা রেজাউল ইসলাম ভূইয়া ও জহিরুল আলম রুবেল প্রমুখ।

তিনি আরও জানান, তিনটি বৈঠকই অত্যন্ত আন্তরিক ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভারতের শীর্ষ স্থানীয় ওই তিন নেতার সঙ্গে প্রায় অভিন্ন বিষয় নিয়েই আলোচনা হয়েছে। আমরা এখন আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমরা বলেছিÑ অত্যন্ত বিরূপ পরিস্থিতির মধ্যেও জাতীয় পার্টি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। লেভেল প্লেইং ফিল্ড আমরা পাইনি তবুও নির্বাচন থেকে কখনো সরে যাইনি। আমাদের সাংগঠনিক অবস্থা এখন আগের চাইতে অনেক বেশী সুসংগঠনিত আছে। তাই আশা করছি- আগামীতে আমরা সরকার গঠন করতে পারবো। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে আমরা আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে জাতীয় পার্টির প্রার্থীকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে নির্দেশ দিয়েছি। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের অন্তর্গত জাতীয় পার্টির সকল নেতাকর্মী সমর্থকদের আওয়ামী লীগ প্রার্থী- সাদিক আব্দুল্লাহ’র পক্ষে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছি। আমরা মনে করি বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের উন্নয়নের স্বার্থে আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করার প্রয়োজন আছে। তাই এই নির্বাচনে সাদিক আব্দুল্লাহকে ভোট দিয়ে তাকে জয়যুক্ত করার জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানাই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত