প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়কে অপবিত্র করেছে ছাত্রলীগ

আবুল খায়ের ভুঁইয়া: আপনারা ইতি পূর্বেও দেখেছেন যে, প্রায় সমগ্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যায়ের শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কারের আন্দোলনের সাথে একমত পোষণ করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারীরা আন্দোলন করছিলো। তাদের সাথে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা শহীদ মিনারে প্রতিবাদ করতে জড়ো হয়েছিলো। সেখানে শিক্ষকদের উপর ছাত্রলীগ ন্যক্কার জনক হামলা করেছিলো। সেই হামলাকে বৈধতা দেওয়ার জন্য আওয়মী লীগের নেতারা নানান যুক্তি, তর্ক উপস্থাপন করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের উপর হামলায় যুক্তি তর্কের কিছুই ছিলোনা। ছাত্রদের ন্যায্য দাবিকে দমিয়ে রাখার জন্য শহীদ মিনারে ছাত্র এবং আমাদের সম্মানিত শিক্ষকদের উপর ন্যক্কার জনক হামলা করেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একটি ঐতিহ্যবাহী স্থান, যেখানে স্বাধীকার আন্দোলন, স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে বাংলাদেশের সকল যৌক্তিক আন্দোলন শুরু হয়েছিলো। এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় পাতাকা উত্তল হয়। বর্তমান সরকার দলীয় ছাত্র সংগঠন সেই পবিত্র অঙ্গন, ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়কে অপবিত্র করেছে। সেই ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সহ অনেকে সরকারের পক্ষে ছাফাই গাইছে। এর আগেও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের উপর হামলা চালানো হয়েছে। এর পরে সাংবাদিক দম্পতি সাগর, রুণির হত্যার বিষয় আজ পর্যন্ত সেই হত্যা কান্ডের কোনো রহস্য উদঘাটন হয়নি। যগিও এর আড়ালে কি ঘটছে তা এ দেশের জনগণ খুব ভালো ভাবেই জানেন। মাহমুদুর রহমান হলো একজন পত্রিকা সম্পাদক তার পত্রিকা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং আমার দেশের পত্রিকা যেখানে প্রিন্ট হতো সেখানে সিল গালা করা হয়েছে। এখন স্বভাবত কারণে তার বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। তিনি আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কোর্টে হাজিরা দিতে গিয়েছে। কোর্ট থেকে বাহির হওয়ার সময় পুলিশের উপস্থিতিতে সরকারের অঙ্গ সংগঠন ছাত্রলীগ এবং যুবোলীগ তার উপর হামলা করেছে। তার উপর হামলা চলাকালীন সময়ে পুলিশ নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে। এদেশের মানুষের গণতান্ত্রীক কথা বলার যে অধিকার আছে ,সরকার তা কেড়ে নিয়েছে। এবং তাদের আমলে কোনো অধিকার আদায়ে কথা বলার কোনো সুযোগ সুবিধা নেই। আমরা আরো দেখেছি যারা কলমের শক্তি দিয়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে লিখেছিলেন, তাদেরকে নানা ভাবে হয়রানি করেছে। শুধু তাই করেই ক্ষ্যান্ত হয়নি, এর প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য সাংবাদিকদের পরিবার এবং তাদের সন্তানদেরও ছাড় দেয়নি।
পরিচিতি : বিএনপি, সাবেক এমপি/মতামত গ্রহণ : তাওসিফ মাইমুন/সম্পাদনা: ফাহিম আহমাদ বিজয়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ