প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খুলনা ও কুষ্টিয়ায় কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা দুটি এনজিও

সাজিয়া আক্তার : লোভনীয় মুনাফার প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ আত্মসাৎ করে লাপাত্তা খুলনা ও কুষ্টিয়ার দুটি এনজিও। কষ্টের টাকা হারিয়ে এখন দিশেহারা গ্রাহকরা। সঞ্চয়ের টাকা ফেরত পেতে করছেন বিক্ষোপ। তাদের কোনো ঠিকানা না থাকায় ব্যবস্থা নিতে পারছে না প্রশাসন। সচেতন হয়ে কোনো সংস্থায় টাকা জমা দেওয়ার পরামর্শ সমাজ সেবা অধিদপ্তরের।

সঞ্চলের টাকা ফেরতের দাবিতে এই মানববন্ধন। যারা কষ্টের টাকা জমা রেখেছিলেন খুলনার চলন্তিকা যুব সোসাইটি নামের একটি এনজিওতে। ২০ হাজার গ্রাহকের শত কোটি টাকা নিয়ে ৪ মাস ধরে লাপাত্তা এনজিওটির কর্মকর্তারা।

১৪ বছর আগে ক্ষুদ্র ঋণ বিতরন ও সঞ্চয় সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু করে এনজিওটি। গ্রাহকদের টাকায় খুলনায় গড়ে তুলে কয়েকটি বহুতল ভবনও। ভুক্তভোগীদের মামলায় প্রতিষ্ঠানের দুই কর্মকর্তা খবিরুজ্জামান ও সোরোয়ার হোসেন এখন কারাগারে।

খুলনা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান বলেন, এনজিও সমন্বয় মিটিংয়ে আমরা এই বিষয়টা নিয়ে আলোচনা করবো।

ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি নামে আরএকটি এনজিওয়ের ফাঁদে পরে এখন নিঃস্ব কুষ্টিয়ার কয়েক হাজার গ্রাহক। কয়েক সাপ্তাহ আগে অফিস খুলে প্রায় ৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এনজিওটি।

নিয়ম না মেনে বাড়ি ভাড়া দেওয়ায় প্রতারক চক্রের ঠিকানা জানা নেই কারোর।

কুষ্টিয়ার সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ পরিচালক রোখসানা পারভীন বলেন, যারা বাড়ি ভাড়া দিয়েছে তাদের সমস্যা হচ্ছে এরা মাত্র ১৫ দিনের জন্য ভাড়া নিল তারা কী কাজে ভাড়া নিল তা আগে থেকে জানা দরকার ছিল। সাধারণ জনগণ তারা যদি ঋণ নেওয়ার আগে জেলা প্রশাসনকে জানায় তারা কী রকম ঋণ নিবে, এবং আপনারা এর সাথে জড়িত আছেন কিনা। তাহলে আমরা তাদের সাথে আলোচনা করে বুঝতে পারি এবং সহজেই সমাধান করতে পারি।

কোনো সংস্থাকে টাকা জমা দেওয়ার আগে জেনে নেওয়ার পরামর্শ সমাজ সেবা অধিদপ্তরের।

সূত্র : চ্যানেল ২৪ টেলিভিশন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ