প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সমাধানের পথে কিটক্যাটের ট্রেডমার্ক মামলা

আসিফুজ্জামান পৃথিল: বিশ্বব্যাপি চকলেটপ্রেমীদের কাছে ব্যপক জনপ্রিয় ব্র্যান্ড নেসলের কিটক্যাট। লম্বা কুড়মুড়ে ওয়েফারের উপর পাতলা চকলেটের প্রলেপ, এই চেহারাতেই কিটক্যাটকে দেখতে অভ্যস্ত গ্রাহকরা। কিন্তু নিজেদের এই চিরাচরিত চেহারা হারাবার শঙ্কায় পড়েছে কিটক্যাট। নরওয়ের স্থানীয় ব্র্যান্ড ‘কিভিক লিন্সজ’ বা কুইক লাঞ্চের সাথে নিজেদের ট্রেডমার্ক আকৃতি নিয়ে কিটক্যাটের চলমান মামলা প্রায় সমাধানের পথে। বুধবার এই মামলার রায় দেবার কথা ছিলো ইউরোপিয় আদালতের।

বিশ্বের অধিকাংশ চকলেটপ্রেমী সম্ভবত কুইক লাঞ্চের নামই কখনও শোনেননি। কিন্তু তারা ৮০ বছর যাবৎ ওয়েফার চকলেট বানাচ্ছে। প্রথম সমস্যা সৃষ্টি হয়, এক দশক আগে যথন কিটক্যাট নিজেদের অনন্য আকৃতির ট্রেডমার্ক পাবার চেষ্টা করে। কারণ প্রায় কিটক্যাটের সাথেই এই আকৃতি ব্যবহার করা শুরু করেছিলো কুইক লাঞ্চ।

নরওয়েজিয়ানরা কুইক লাঞ্চকে নিজেদের জাতীয় গর্বের প্রতীক বলে মনে করে। বহু বছর ধরেই সাস্থ্যবান স্ক্যান্ডেনেভিয়ান হাইকাররা হাইকিং এর সময় এই চকলেট ব্যবহার করছেন। তবে এর স্বাদ কিটক্যাটের চাইতে বেশ আলাদা।

১৯৩১ সালে প্রথম বাজারে আসে কুইক লাঞ্চ। আর ১৯৩৫ সালে বাজারে আসে কিটক্যাট। কিন্তু তখন এর নাম কিটক্যাট নয় রওনট্রিস চকলেট চিপস ছিলো। ৬৫ বছর এই দুইটি ব্র্যান্ড বাজারে পাশাপাশি অবস্থান করেছে। কিন্তু ২০০২ সালে কিটক্যাট ট্রেডমার্কের আবেদন করলেই শুরু হয় সমস্যা। বিবিসি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ