প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নামাজের পর তাসবিহ পড়বেন কেন?

তারিকুল ইসলাম: তাসবিহ পড়া আল্লাহর নির্দেশ। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমের অনেক জায়গায় তার তাসবিহ পড়ার নির্দেশ প্রদান করেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘সুতরাং তুমি তোমার প্রতিপালকের ‘তাসবিহ’ (প্রশংসা) পবিত্রতা ঘোষণা কর এবং তাঁর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা কর। নিশ্চয় তিনি অধিক তাওবা গ্রহণকারী।’ (সুরা নাসর : আয়াত ৩) এ তাসবিহ নামাজের পর পড়তে হবে কেন? এ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা সুস্পষ্ট ভাষায় বান্দাকে লক্ষ্য করে নির্দেশ প্রদান করেছেন। আল্লাহ বলেন, ‘তার পবিত্রতা ও মহিমা ঘোষণা কর রাতের একাংশে এবং নামাজের পরেও।’ (সুরা ক্বাফ : আয়াত ৪০)

প্রথম আয়াতে আল্লাহ তাআলা তাঁর তাসবিহ তথা প্রশংসা করার নির্দেশ প্রদান করেছেন। আর এ তাসবিহ পাঠের ফলে আল্লাহ তাআলা বান্দার গোনাহ মাফ এবং তাওবা গ্রহণ করবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছেন। আল্লাহর তাসবিহ বা প্রশংসা সব সময়ই করা যায়; কিন্তু আল্লাহ তাআলা কুরআনে পাকে প্রিয়নবিকে নামাজের পর তাসবিহ পড়ার কথা বলেছেন। এ প্রসঙ্গে হাদিসে পাকেও ঘোষিত হয়েছে দিক নির্দেশনা।

হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, আল্লাহ তাআলা প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে প্রত্যেক নামাজের পর তাসবিহ পড়ার আদেশ করেছেন। আল্লাহ তাআলার বাণী, ‘ফাসাব্বিহহু আদবারাস সুজুদ’ দ্বারা তিনি এ অর্থ করেছেন। এর মানে ‘এবং সিজদাসমূহের সমাপ্তির পর’ অর্থাৎ নামাজ শেষে তাসবিহ পড়।’ (বুখারি)
আয়াতের ব্যাখ্যায় এসেছে, ‘আল্লাহর তাসবিহ পাঠ কর। প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে তাসবিহ ফরজ নামাজের পর পড়তে বলেছেন। যেমন- ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ; ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ; এবং ৩৪ বার আল্লাহু আকবার। যদিও এ আয়াত নাজিলের অনেক পরে বলা হয়েছে। আবার কেউ কেউ এ তাসবিহ বলতে মাগরিবের নামাজের পর দুই রাকাআত সুন্নাত নামাজকে সাব্যস্ত করেছেন।

পরিশেষে : হাদিসে পাকে অনেক তাসবিহ পড়ার কথা উল্লেখ রয়েছে। যার অনেকগুলোই ফরজ নামাজের পর পড়ার কথা বলা হয়েছে। কেননা তাসবিহ পাঠ করলেই আল্লাহ তাআলা বান্দাকে গোনাহমুক্ত করে দেন। বান্দার তাওবা কবুল করেন।
সর্বোপরি কথা হলো, ‘আল্লাহ তাআলা প্রশংসা ও গুণগান যাই করা হোক না কেন; সবই তাসবিহ। যে কোনো বিধানের বাস্তবায়নে যেমন তার তাসবিহ পালন করা হয় এবং তা ইবাদতও বটে। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে প্রত্যেক ফরজ নামাজের পর যথাযথভাবে তাসবিহ পালনের তাওফিক দান করুন। তাসবিহ পাঠের মাধ্যমে গোনাহমুক্ত জীবন লাভ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ