প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনুদানের নামে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন শ্রমিকরা!

ডেস্ক রিপোর্ট : শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশনের অনুদান পাইয়ে দেওযার নামে অসাধু চক্রের হাতে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন শ্রমিকরা। এমন তথ্য উঠে এসেছে শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশনের এক তদন্তে।

শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশনের তদন্তে দেখা যায়, দেশের প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকরা একটি অসাধু চক্রের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তবে এক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিকদের তুলনায় অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকরা বেশি ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। এই চক্রটি কোনো দুর্ঘটনার শিকার ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমিক ও শ্রমিকের পরিবারকে প্রথমে শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশনের বিষয়ে অবহিত করে। পরে সেই ফাউন্ডেশনের অনুদানের অর্থের প্রলোভন দেখায় ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমিকদের। এক পর্যায়ে অনুদান পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয় বলে উঠে এসেছে সংস্থাটির তদন্তে।

শ্রমিকদের সর্তক করতে শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশন থেকে ইতিমধ্যেই একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্টভাবে শ্রমিকদের জন্য পরামর্শ দিয়ে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন থেকে অনুদান প্রাপ্তির লক্ষ্যে কোনো দালাল বা অসাধু ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ অথবা আর্থিক লেনদেন করবেন না। যদি কেউ আর্থিক লেনদেনে জড়িত হোন তবে তার দায় বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের নয়।

কিন্তু এই চক্রের সঙ্গে জড়িত কারা সেই বিষয়ে সরাসরি কথা বলতে নারাজ সংস্থাটির কর্মকর্তারা।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশনের এক কর্মকর্তা বার্তা২৪.কমকে বলেন, অনুদানের কথা বলে যারা শ্রমিকদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলে তার বেশির ভাগই শ্রমিক নেতা। যাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে গেলেই শ্রমিক অসন্তোষের হুমকি দেওয়া হয়। এই চক্রের সঙ্গে শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশনের বোর্ডের অনেক সদস্যের যোগাযোগ রয়েছে। তারাই মূলত ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমিকদের অনুদানের তালিকায় নাম লিপিবদ্ধ করিয়ে দেওয়ার কথা বলে টাকা নিচ্ছে।

বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করেছেন শ্রম কল্যাণ ফাউন্ডেশনের বোর্ডের সদস্য ও শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শুকুর মাহমুদ। তিনি বার্তা২৪.কমকে, এ ধরনের অভিযোগ আমরাও পাচ্ছি। তবে এখনো লিখিত কোনো অভিযোগ পাইনি। যদি লিখিত আনুষ্ঠানিক কোনো অভিযোগ পাই তাহলে আমরা অবশ্যই জড়িত শ্রমিক নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব। মুখের কথার অভিযোগে তো ব্যবস্থা নেওয়া যায় না।

অন্যদিকে প্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিকদের তুলনায় অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের এসব দালাল চক্র বেশি টার্গেট করছে বলে জানান টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশন এর সাধারণ সম্পাদক তপন সাহা।

এ বিষয়ে বার্তা২৪.কমকে তিনি বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের দায়িত্ব মূলত মালিকপক্ষ নিয়ে থাকেন। এই কারণে শ্রম কল্যাণ তহবিল থেকে প্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিকদের তেমন কোনো অনুদান দেওয়া হয় না। আর তাই এই দালাল চক্রটি অপ্রাতিষ্ঠাতিক খাতের শ্রমিকদের টার্গেট করে থাকে। এই চক্রের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেওয়া উচিত। যাতে ভবিষ্যতে আর কোনো শ্রমিক নেতা এ ধরনের অসাধু কাজ করার কথা চিন্তাও না করতে পারেন।

সূত্র : বার্তা২৪.কম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ