প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বেসিক ব্যাংকের অভিযুক্ত কর্তারা জামিন পেয়ে আবার সেই প্রতিষ্ঠানেই

বিশ্বজিৎ দত্ত : বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ব্যাংক কর্মকর্তারা জামিনে বেড়িয়ে সেই ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানেই আবারো চাকরি করছেন। যদিও তারা বলছেন ঋণ জালিয়াত গ্রুপে তারা জয়েন করেননি। তারা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে টাকা উদ্ধারের জন্য সেই সব প্রতিষ্ঠানে যাচ্ছেন।২০১৫ সালের ২২ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর বেসিক ব্যাংকের ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতির ঘটনায় ১২০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করে দুদক। এরমধ্যে ২৭ জন ব্যাংক কর্মকর্তা রয়েছেন।পরে দুদক ৫ জন্য ব্যাংক কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠায়।গত কয়েকমাস আগে হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে দিলকুশা ব্রাঞ্চের ম্যানেজার জয়নাল আবেদীন এজিএম এহসানুল বারী জামিন নিয়ে ঋণ জালিয়াতির মামলায় অভিযুক্ত নীল সাগর গ্রুপে জয়েন করেছেন বলে জানা যায়।

এ ব্যাপারে জয়নাল আবেদীনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি নীল সাগর গ্রুপের ৪টি প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিয়েছিলাম। এখন জামিনে বের হয়েছি। আমি সেখানে জয়েন করিনি। প্রতিষ্ঠানটিতে যাতায়াত করছি। যাতে টাকা উদ্ধার হয়। আপনিতো এখন ব্যাংকে কর্মরত নেই তবে টাকা উদ্ধারের জন্য সেখানে যাচ্ছেন কেন। এ প্রশ্নে জয়নাল আবেদীন বলেন, আমার পেনশনসহ সরকারের সকল ভাতা আটকে আছে। এই ঋণের টাকা উদ্ধার না হলে আমি এসব পাবনা। তাই স্বপ্রণোদিত হয়ে চেষ্টা করছি টাকা উদ্ধারের। আপনি এসে দেখে যান নীল সাগর গ্রুপের সকল প্রতিষ্ঠানই চালু রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০০৯ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে চার বছরে বেসিক ব্যাংক থেকে ঋণ জালিয়াতির মাধ্যমে ৪,৫০০ কোটি টাকা বের করে নিয়ে যাওয়া হয়। টাকার অঙ্কে দেশের ইতিহাসে এককভাবে এটাই সবচেয়ে বড় ঋণ কেলেঙ্কারি।

অন্যদিকে দুদক এখনো বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারির ৫৬ মামলার তদন্ত আড়াই বছরেরও শেষ করতে পারেনি। গত মাসে তদন্ত কর্মকর্তাদের তলব করে দুদকের প্রতি তীব্র ক্ষোভ ও হতাশা ব্যক্ত করেন হাইকোর্ট। আদালত বলেন, ‘এখন লজ্জায় চোখ ঢাকি। মনে হয় কালো কাপড় দিয়ে মুখ ঢাকি।’

আসামিদের সঙ্গে তদন্তকারী কর্মকর্তাদের যোগসাজশ প্রসঙ্গে বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম বলেন,আপনাদের নির্লিপ্ততার কারণে যেসব আসামি ভেতরে আছে তারা বেরিয়ে যাচ্ছে। তাদের সাথে আপনাদের সখ্য আছে বলে মনে হচ্ছে। চার্জশিট দিতে দেরি করছেন, যাতে আসামিরা জামিন পেয়ে যায়। আমরা তাদের জামিন দিতে বাধ্য হচ্ছি।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত