Skip to main content

‘মা’ই পারে বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে’

তপু সরকার হারুন, শেরপুর: বাল্যবিবাহের ফলে দিন দিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রীর সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। তাই বাল্যবিবাহ বন্ধে একজন মা’ই গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করতে পারেন। একজন মা তার সন্তানের পড়ালেখাসহ জীবন গঠনের ক্ষেত্রে প্রকৃত অভিভাকের ভুমিকা পালন করেন, যদিও এক্ষেত্রে বাবারা বটের ছায়ার মত। এমন মন্তব্য করেছেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ঢাকা’র সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর তাসলিমা বেগম। রবিবার শেরপুরের নকলা উপজেলার বানেশ্বরদী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার মিলনায়তনে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ, শিক্ষার্থীদের মাদরাসায় নিয়মিত করন, মাদক বিরোধী ও শিক্ষার মানোন্নয়নে মা সমাবেশ এবং কৃতি শিক্ষার্থী, সেরা শিক্ষক ও সেরা প্রতিষ্ঠানের সম্মাননা বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সুপার মাওলানা মো. শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মাঝে, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুর রশিদসহ, প্রধান শিক্ষক মো. আজহারুল ইসলাম ফিরোজ, সহকারী মৌলভী রেজাউল করিম, অভিভাবক এ.কে আজাদ ও ফাতেমা বেগম; মাদরাসা পরিচালনা পরিষদের সদস্য মেহেদী হাসাদ, নকলা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মিজানুর রহমান, মাদরাসার শিক্ষার্থী সজীব হাসান, সিদ্দিকুর রহমান ও নাছিমা আক্তার প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। আলোচনা শেষে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৮ এর উপজেলা পর্যায়ে সেরা প্রতিষ্ঠান বানেশ্বরদী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার সভাপতি ও সুপারের হাতে অভিনন্দন সম্মাননা তুলেদেন শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রশিদ, তাছাড়া সেরা শ্রেণি শিক্ষক হিসেবে মাওলানা মো.ফজলুল করিম, নাতে-রাসুলে নাসিমা আক্তার, ক্বেরাতে সিদ্দিকুর রহমানকে সেরা শিক্ষার্থী হিসেবে তাদের হাতে সম্মননা পদক তুলে দেওয়া হয়। এছাড়া শতভাগ উপস্থিতির জন্য ৪ জন শিক্ষার্থীকে এবং অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা-২০১৮ ফলাফলে প্রতি শ্রেণির ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অধিকারিদের মাঝে উদ্দীপনা পুরষ্কার তুলেদেন অতিথিবৃন্দ। এসময় মাদরাসার শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষানুরাগীমহল ও এলাকার গন্যমান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অন্যান্য সংবাদ