Skip to main content

পাকিস্তানে বিচারপতি ও আইএসআই’র দ্বন্দ্ব চরমে

কায়কোবাদ মিলন: পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি নিসারকে সে দেশের সশস্ত্র বাহিনীর জনসংযোগ বিভাগের টুইট করার কয়েক ঘন্টা আগেই সাংবাদিকদের সামনে গতকাল মুখ খুলতে হল । তার বক্তব্য কি সামরিক বাহিনীকে খুশি করার চেষ্টা? ইসলামাবাদ হাইকোর্টের বিচারপতি শওকত আজিজ সিদ্দিকী পাক শীর্ষ গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই’র বিরুদ্ধে শনিবার গুরুতর অভিযোগ করেন । গতকাল বিকেলে সমস্ত্র বিভাগের জনসংযোগ বিভাগ আইএসপিআর বিচারপতি সিদ্দিকীর বক্তব্যের ব্যাপারে টুইট করে জানায়, বিচারপতি সিদ্দিকী সম্মানিত বিচার বিভাগ ও দেশের শীর্ষ গোয়েন্দা সংস্থা আএসআই’র বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ করেছেন ।আইএসপিআর দেশের উল্লেখিত সংস্থার ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টকে তদন্ত করে মর্যাদাপূর্ণ দুই প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি ফিরিয়ে আনার আহবান জানায় । আইএসপিআর ’র টুইটে শেয়ার করেন সংস্থার ডিজি মেজর জেনারেল আসিফ গাফফার । ইসলামাবাদ হাইকোর্টের বিচারপতি সিদ্দিকী রায় প্রদানের ক্ষেত্রে আইএসআই’র হস্তক্ষেপের অভিযোগ করেছেন । শনিবার রাওয়ালপি-ি বারের এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়ে মরিয়মকে নির্বাচন পর্যন্ত জেলে ঢুকিয়ে রাখতে আইএসআই ইসলামাবাদ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিকে অনুরোধ করেছিল । বিচারপতি সিদ্দিকীর বক্তব্যে পাকিস্তান জুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে । সকালে পাকিস্তান সফর করছিলেন প্রধান বিচারপতি মিয়া সাকিব নিসার । তিনি বলেন, সর্বোচ্চ আদালতের বিচারক হিসেবে আমি বলব, আমাদের উপর কোন মহলের কোন চাপ নেই। আমরা সংবিধানের সার্বভেীমত্ব ও আইনের আলোকে বিচার করি । বিচারপতি সিদ্দিকীর বক্তব্যকে তিনি অগ্রণযোগ্য বলে উল্লেখ করে বলেন, বিষয়টি তিনি পরীক্ষ্ াকরে দেখবেন এবং তদন্ত শেষে জনগণকে অবহিত করা হবে । তিনি বলেন, বিচার বিভাগের উপর প্রভাব বিস্তারের সাহস দেখানো অসম্ভব ব্যাপার। এদিকে হাইকোর্টের বিচারপতি সিদ্দিকী তার হইচই ফেলে দেয়া বক্তব্যে আরও বলেন, আইএসআই বর্তমানে পুরোপুরিভাবে বিচার ব্যবস্থায় প্রভাব বিস্তারে লিপ্ত । শুধু তাই নয় বেঞ্চগুলো কিভাবে গঠিত হবে সে নির্দেশনাও তারা দিচ্ছে । কোন প্রমাণ ছাড়াই বিচারপতি সিদ্দিকীর মত একজন সিনিয়র বিচারক এমন অভিনব ও গুরুতর অভিযোগ আনলেন । তিনি বলেন, আইএসআই ইসলামাবাদ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি আনোয়ার কাসিকে বলেছে, কোন ক্রমেই আমাকে যেন নওয়াজের মামলার বেঞ্চে রাখা না হয় এবং নওয়াজও যেন নির্বাচনের আগে জামিন না পান । কারো নামোল্লেখ না করে বিচারপতি সিদ্দিকী বলেন, আমি ভাল করেই জানি সুপ্রিম কোর্টের কাছে কারা বার্তা নিয়ে যাচ্ছেন । তিনি প্রশ্ন করেন, জবাবদিহি আদালতের প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণ কেন তাদের হাইকোর্টের নিয়ন্ত্রণ থেকে সরিয়ে নেয়া হল । তিনি বলেন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা আজ ভূলুন্ঠিত এবং বন্দুকের নল দিয়ে বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে । বিচারপতি সিদ্দিকী বলেন, তাদের কথা মত কাজ করলে আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রত্যাহার করা হবে বলেও তারা আমাকে জানিয়েছে । তারা সেপ্টেম্বরের মধ্যে আমাকে প্রধান বিচারপতি করার কথাও বলেছে । সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের একটি হল ফয়জাবাদের ধর্মঘটে ব্যাপারে তার সাহসী রায় । সেই রায়ে তিনি সামরিক বাহিনীর তীব্র সমালোচনা করেছেন । বিচারপতি সিদ্দিকী বলেন, তিনি যখনই কোন গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় দেন তখনই একটি মহল তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ নিয়ে সাতকাহন করে । তিনি বলেন, তার অভিযোগের তদন্ত করার এখতিয়ার শুধু বারেরই রয়েছে । বার তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ পেলে তিনি পদত্যাগে রাজী বলে জানান । তিনি বলেন, পাকিস্তান ইউরোপ, আমেরিকা নয় কিন্তু বাংলাদেশ ভারতের আদালতের সঙ্গে তুলনীয় । তিনি বলেন, রাজনৈতিক প্রক্রিয়া ভারতে কখনোই অবরুদ্ধ করা হয়নি । ফলে ভারত এগিয়েই চলেছে । তিনি বলেন ,পাকিস্তানের ৫০ ভাগ সমস্যাদি নিষ্পন্নের দায়িত্ব এখন বিচার বিভাগের । বাকিরা মিলে বাকি দায়িত্ব পালন করবে । ডন

অন্যান্য সংবাদ