প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কোটা আন্দোলনকারী ছাত্রীদের ওপর যৌন নিপীড়নের বিচার চায় নারীমুক্তি কেন্দ্র

রফিক আহমেদ : বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি সীমা দত্ত বলেছেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী ছাত্রী এবং শিক্ষিকাদের ওপর যৌন নিপীড়নের বিচার করতে হবে। ঘরে -বাইরে-কর্মস্থলে- শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নারী আজ কোথাও নিরাপদ নয়। শনিবার বিকাল সাড়ে ৪ টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী ছাত্রী এবং শিক্ষিকাদের ওপর যৌন নিপীড়নের বিচার চেয়ে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্রের উদ্যোগে সংগঠনের সভাপতি সীমা দত্তের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন সংগঠনের অর্থ সম্পাদক তসলিমা আক্তার ও সদস্য নাঈমা খালেদ মনিকা।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, যে সরকারের দায়িত্ব নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সে সরকার আজ তার বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা আন্দোলন দমন করছে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী নেতা-কর্মীদের দিয়ে। আমাদের দেশের সংবিধানে সকল নাগরিকের মত প্রকাশের অধিকার থাকলেও সরকার সংবিধানের এই নীতি মানছেনা। আন্তর্জাতিক সনদ সিডও কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী ছাত্রী এবং শিক্ষিকাদের ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী নেতা কর্মীরা প্রকাশ্যে যৌন নির্যাতনের হুমকি দিচ্ছে। সরকার নিরব ভূমিকা পালন করছে। অতীতে তনু হত্যাসহ, নারী ধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় আমরা দেখেছি অপরাধীরা সরকারের ছত্রছায়ায় পার পেয়ে গেছে। চলতি বছরের গত ৭ মার্চে শাসক দল আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশকে কেন্দ্র করে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে নারী নিপীড়নের ঘটনা ঘটেছে। ১ বৈশাখে নারী লাঞ্ছনাকারীরা ছাত্রলীগের সঙ্গে যুক্ত বলে জানা গেছে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শততম ধর্ষণ পালনকারী ছাত্রলীগের নেতা মানিকের কথা সকলেই জানে।

বক্তারা বলেন, বিবেকবান মানুষ কখনই অন্যায়কে মেনে নেয়নি। তাই প্রতিরোধও গড়ে উঠেছে তাদের পক্ষ থেকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকরা অন্যায়ের বিরুদ্ধে যে দৃপ্ত শপথ উচ্চারণ করেছেন তা অপরাধীদের বুকে কাঁপন ধরিয়েছে নেতৃবৃন্দ অবলিম্বে আন্দোলনরত ছাত্রী ও শিক্ষিকাদের ওপর ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের যৌন নিপীড়ন ও হয়রানির বিচার ও শাস্তির দাবি জানান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ