প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৮০ কোটি টাকা লোকসানের মুখে আলহাজজুটমিল বন্ধ

ডেস্ক রিপোর্ট : প্রায় ৮০ কোটি টাকা লোকসান এবং ১৫ কোটি টাকা ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে বন্ধ হয়ে গেলো সরিষাবাড়ীর আলহাজ জুট মিল। শুক্রবার মধ্যরাতে মিলটি বন্ধের ঘোষণা করে নোটিশ টানিয়ে দেয় মিল কর্তৃপক্ষ। বেকার হয়ে পড়া শ্রমিকরা শনিবার সকাল থেকে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে। মিল বন্ধ হওয়ার ঘটনায় দেখা দিয়েছে শ্রমিক অসন্তোষ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে মিল এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করেছে প্রশাসন।

জুট মিলের নিরাপত্তা প্রধান সিরাজুল ইসলাম জানান, আলহাজ জুটমিলের হেড অফিস থেকে পিয়ন দেলোয়ার শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে এসে মিলের প্রধান গেটে বন্ধের নোটিশ লাগিয়ে দিয়ে চলে যায়।
শনিবার সকাল ৬টায় তিনি ডিউটিতে এসে মিল বন্ধের নোটিশ দেখতে পান। কর্তৃপক্ষের নির্দেশে প্রধান গেট বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ সময় শত শত শ্রমিক জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে।

মিল সূত্র জানায়, ১৯৬৭ সালে সরিষাবাড়ী পৌরসভার মাইজবাড়ি এলাকায় আলহাজ জুট মিলটি স্থাপিত হয়। এ মিলে পাটের তৈরি বস্তা, ব্যাগ ও কার্পেটের সুতা প্রস্তুত করা হয়। দৈনিক প্রায় ১৫ মে. টন পণ্য উৎপাদন হতো। বর্তমানে এখানে প্রায় তিন হাজার শ্রমিক-কর্মচারী কর্মরত আছে। পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই মিলটি হঠাৎ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শ্রমিকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। রাতেই কর্মকর্তারা মিল ছেড়ে গা-ঢাকা দেন। এদিকে মিল বন্ধের প্রতিবাদে হাজারো শ্রমিক সকাল থেকে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে মিলগেটে বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

পাট ব্যবসায়ী আব্দুল বারিক এ প্রতিবেদকে বলেন, মিল কর্তৃপক্ষের কাছে পাট ব্যবসায়ীদের প্রায় ১৫ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে। তাঁর নিজেরই প্রায় ২৫ লাখ টাকা পাওনা। হঠাৎ মিলটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পথে বসার উপক্রম পাট ব্যবসায়ীদের।
এ ব্যাপারে আলহাজ জুট মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আলহাজ হারুনুর রশিদ মুঠোফোনে জানান, মিলটি বর্তমানে প্রায় ৮০ কোটি টাকা লোকসানে রয়েছে। লোকসান প্রতিমাসে বেড়ে চলায় মিল চালু রাখা সম্ভব নয়। তবে বকেয়া টাকা পরিশোধ করা হবে বলে আশ্বাস দেন তিনি। সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, মিলটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রশাসন নজরে রাখছে। সূত্র : পরিবর্তন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ