প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উত্তেজনা ছড়াচ্ছে শান্ত বরিশালে

ডেস্ক রিপোর্ট:  ৩০ জুলাই বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে খারাপ কোনো পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়নি বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সাদিক আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, এ কারণে সেনাবাহিনী মোতায়েনের অবস্থা নেই।

অন্যদিকে ভোটের সময় আতঙ্ক দূর করার কথা জানিয়ে বিএনপির মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার বলেছেন, গ্রেফতার আতঙ্ক সৃষ্টি না করলে বরিশালে ভালো ভোট হবে। গতকাল দুপুর ১টার দিকে বরিশাল জেলা জজ আদালত চত্বরে গণসংযোগ করেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সাদিক আবদুল্লাহ। এ সময় তিনি বরিশালের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করার জন্য ৩০ জুলাই দেখেশুনে যোগ্য প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান। তিনি ইভিএম পদ্ধতিতে বিএনপির প্রার্থীর আপত্তির বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, যার (বিএনপি প্রার্থী) ডিজিটাল সম্পর্কে কোনো আইডিয়া (ধারণা) নেই, তিনিই বলতে পারেন ইভিএমে ডিজিটাল কারচুপি হয়। ইভিএম পদ্ধতিতে একজনের ভোট আরেকজন দিতে পারেন না এবং দ্রুত সময়ের মধ্যেই ভোট প্রদান ও গণনা করা যায়।

এদিকে বেলা ১১টায় নগরীর স্টেডিয়াম কলোনি এলাকায় গণসংযোগ করে লিফলেট বিতরণ করেন বিএনপির প্রার্থী অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের জানান, গণসংযোগে তিনি মানুষকে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করছেন। এতে বিএনপির পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু এমন পরিস্থিতির মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্কে মানুষের মধ্যে ভীতির সৃষ্টি হয়েছে। আগামী কয়েক দিন যদি সরকার গ্রেফতার আতঙ্ক না করে তাহলে বরিশালে ভোট ভালো হবে। এদিন বেলা ১১টার দিকে নগরীর কাশীপুর বাজার এলাকায় বিএনপির পক্ষে গণসংযোগ করে ধানের শীষের লিফলেট বিতরণ করেন বিএনপির দুই ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান ও বেগম সেলিমা রহমান।

এ ছাড়া জাতীয় পার্টির ইকবাল হোসেন তাপস, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাওলানা ওবাইদুর রহমান মাহবুব, কমিউনিস্ট পার্টির অ্যাডভোকেট এ কে আজাদ, বাসদের ডা. মনীষা চক্রবর্তী ও জাতীয় পার্টির বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) মেয়র প্রার্থী বশির আহম্মেদ ঝুনু নগরীর বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করে নিজ নিজ প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন। বাংলাদেশ প্রতিদিন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ