প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে মিয়ানমারের আন্তরিকতার সমালোচনা করে থাই পরামর্শকের পদত্যাগ

লিহান লিমা: রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে গঠিত মিয়ানমারের ‘আন্তর্জাতিক পরামর্শক প্যানেল’ থেকে পদত্যাগ করেছেন থাই আইনজীবী ও সাবেক রাষ্ট্রদূত কোবসাক চুতিকুল। রাখাইনে জাতিগত দ্বন্দ্ব নিরসন এবং রোহিঙ্গা সমস্যার বাস্তবিক সমাধানে মিয়ানমার প্রশাসনের আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে কোবসাক পদত্যাগ করেন। কোবসাকের পদত্যাগের ফলে আবারো রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মিয়ানমারের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠল।

২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অত্যাচার, ধর্ষণ, নির্যাতন ও সহিংসতার শিকার হয়ে বাংলাদেশ পালিয়ে আসে সাড়ে ৭ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে দেশি এবং বিদেশি বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি প্যানেল গঠন করা হয়। এই প্যানেলের কাজ ছিল রাখাইনের জাতিগত দ্বন্দ্ব ও রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বাধীন কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নে মিয়ানমার সরকারকে পরামর্শ দেয়া।

কোবসাক বলেন, ১০ জুলাই আমি পদত্যাগ করি। পদত্যাগের কারণ ব্যাখ্যা করে এএফপিকে কোবসাক বলেন, ‘এই প্যানেল ধ্রুমজাল সৃষ্টি ছাড়া আর কিছুই না। নেপিদোতে নৈশভোজে দামী খাবার খাওয়া ছাড়া কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না।’

কোবসাক জানান, ‘প্যানেল পরিচালনার জন্য আন্তর্জাতিক তহবিল গ্রহণ করতে প্রশাসনিক বাধা আসছে। এখন পর্যন্ত প্যানেলের কোন স্থায়ী অফিস খুলতে দেয়া হয় নি। দেশটির সেনাবাহিনী আলোচনার টেবিলে আসতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।’

অন্যদিকে প্যানেলের স্থানীয় সদস্য এবং মিয়ানমারের জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান উইন ¤্রা কোবসাকের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমাদের পরামর্শ মত সরকার কাজ বাস্তবায়ন করছে।’ এ বিষয়ে মিয়ানমার সরকারের মুখপাত্র জ হত এবং দেশটির সেনাবাহিনীর কাছ থেকে কোন মন্তব্য পাওয়া যায় নি।

এর আগে প্যানেলটি গঠন করার এক মাসের মধ্যেই এর গ্রহণযোগ্যতা এবং সংকট নিরসনে মিয়ানমারে আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে পদত্যাগ করেন মার্কিন প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও সু চির সাবেক বন্ধু বিল রিচার্ডসন। রিচার্ডসন বলেন, এই কমিটি মিয়ানমার সরকারের ‘হোয়াইটওয়াশ’ ছাড়া আর কিছুই না। এএফপি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ