প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিএনপি যোগাযোগমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর গণসংবর্ধনায়

আহমেদ জাফর: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপির) এক সময়ের ডাকসাইটের নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। বিএনপির শাসনামলে যোগাযোগমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। অনেক সময়ই আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমালোচনা করলেও তিনি প্রধানমন্ত্রীর গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন।

শনিবার রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতীয় ও আন্তজার্তিক পর্যায়ে অর্জিত সফলতার জন্য আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। অনুষ্ঠান চলাকালে তাকে মঞ্চের সামনে সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সাইয়িদ ও জাসদ নেত্রী শিরিণ হকসহ অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে বসে থাকতে দেখা যায়।

সময়ের পরিক্রমায় বিএনপির সঙ্গে রাজনৈতিক সম্পর্ক ছেদ করেছেন। নিজেই গড়ে তুলেছেন নয় দলীয় জাতীয় জোট। এ জোট নিয়ে তিনি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের শরিক ১৪দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হতে যাচ্ছেন। গত ১৮ জুলাই আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৪ দলের মুখপাত্র আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলির সদস্য মোহাম্মাদ নাসিমের সাথে আলোচনা বসেন। এসময় তিনি ১৪ দলের সাথে থাকার ঐক্যমত পোশন করেন বলেন, যারা দেশের মধ্যে ষড়যন্ত্র করছে ১৪ দলের সাথে মাঠে থেকে প্রতিহত করবো।

রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই। রাজনীতির ময়দানে কখনও শত্রুও পরম মিত্র হয়, আবার কখনও পরম বন্ধু শত্রুতে পরিণত হয়। সেইটা প্রমাণ মিলে ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা রাজনীতিতে।

জানা গেছে ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার নেতৃত্বে জাতীয় জোটের অন্যান্য সংগঠন -তৃণমূল বিএনপি, গণতান্ত্রিক আন্দোলন, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স, সম্মিলিত ইসলামিক জোট, কৃষক শ্রমিক পার্টি, একামত আন্দোলন, জাগো দল, ইসলামিক ফ্রন্ট ও গণতান্ত্রিক জোট খুব শিগগির জোটে যোগ দেবেন ১৪দলের সাথে। তবে ১৪দলের সাথে এখনো জোট সম্প্রসারণ হয়নি আর এবিষয় সিদ্ধান্ত নিবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ