প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘ইহুদি জাতির রাষ্ট্র’ ঘোষণার তীব্র নিন্দা জানাল ইরান

রাশিদ রিয়াজ : ইসরায়েলকে ‘ইহুদি জাতির রাষ্ট্র’ ঘোষণা দিয়ে দেশটির সংসদ যে আইন পাস করেছে তার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইরান। তেহরান বলেছে, ফিলিস্তিনি জাতির প্রতিরোধ আন্দোলন ও প্রচেষ্টায় একদিন তাদের মাতৃভূমির ওপর ইহুদিবাদীদের দখখলদারিত্বের অবসান হবে।

দখলদার ইসরায়েলের সংসদ ‘নেসেট’ গত বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) গোটা অধিকৃত ফিলিস্তিনকে ‘ইহুদি জাতির রাষ্ট্র’ ঘোষণা দিয়ে এ ঘোষণাকে আইন হিসেবে অনুমোদন করে। চরম বর্ণবাদী এ আইন অনুযায়ী গোটা ফিলিস্তিন কেবল ইহুদিবাদীদের দেশ হওয়ায় সেখানে ফিলিস্তিনিদের কোনো নাগরিক ও মানবিক অধিকার থাকবে না। এ ছাড়া হিব্রু ভাষাই হবে সেখানকার একমাত্র রাষ্ট্র-ভাষা।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বাহরাম কাসেমি নেসেটের এই বর্ণবাদী আইনের প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, ফিলিস্তিনি জাতির ওপর গণহত্যা চালিয়ে এবং তাদেরকে তাদের মাতৃভূমি থেকে বহিষ্কার করে অবৈধ ইসরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এটি যে একটি দখলদার ও বর্ণবাদী রাষ্ট্র তা নেসেটে এই আইন পাসের মাধ্যমে আরেকবার প্রমাণিত হয়েছে।

কাসেমি বলেন, ইহুদিবাদী সরকারের সব অন্যায় ও অপরাধের প্রতি মার্কিন সরকারের অকুণ্ঠ সমর্থন এবং তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করার লক্ষ্যে কিছু আরব দেশের প্রচেষ্টা এই দখলদার শক্তিকে আগের চেয়ে বেশি উদ্ধত ও ধৃষ্ট করে তুলেছে। এর ফলে ইসরায়েল এখন আগের চেয়ে আরো বেশি নৃশংসভাবে ফিলিস্তিনিদের ওপর গণহত্যা চালানোর সাহস পাবে যা মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতিকে আরো জটিল করে তুলবে।

ইসরাইলি পার্লামেন্টে পাস হওয়া আইনে মুসলমানদের প্রথম কিবলার শহর বায়তুল মুকাদ্দাসকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে ঘোষণার পাশাপাশি ফিলিস্তিনে ইহুদিবাদীদের জন্য নতুন নতুন অবৈধ বসতি গড়ে তোলাকে ‘জাতীয় মূল্যবোধ’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ আইনে পুরনো অবৈধ ইসরায়েলি-বসতিগুলোর বিস্তার ও উন্নয়নের পাশাপাশি কথিত নতুন ‘ইহুদি-বসতি’ গড়ে তোলার কথাও বলা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো ইসরায়েলের এই নতুন বর্ণবাদী তা-ব ও উপনিবেশবাদী দাম্ভিকতায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এসব সংস্থা ইসরায়েলের এ পদক্ষেপকে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন বলে উল্লেখ করেছে। পার্সটুডে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ