প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মিথ্যা মামলার ভারে পথে বসেছে একটি পরিবার

ইসমাঈল হুসাইন ইমু : একের পর এক মিথ্যা মামলায় একটি পরিবার পথে বসেছে। বাপ-দাদার ভিটে হারিয়ে বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন তারা। প্রায় দুই বছর ধরে স্থানীয় দুর্বৃত্তদের এ নির্মম নির্যাতনের শিকার হচ্ছে পরিবারটি। শুক্রবার সেগুন বাগিচাস্থ বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) কার্যালয়ে এসে এ অভিযোগ করেন নির্যাতনের শিকার মো. জসিম উদ্দিন।

তিনি সাংবাদিকদের জানান, নরসিংদীর শিবপুরের বংপুর গ্রামে পৈত্রিক ভিটায় পরিবার নিয়ে সুখে শান্তিতে বসবাস করে আসছিলেন। জমিতে বিভিন্ন ফসল লাগানোসহ ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে ভোগ দখল করছিলেন। কিন্তু গত জানুয়ারি মাসে একদিন হঠৎ আবুল কাশেম, তার ছেলে মনো মিয়া ও তাদের অনুসারি আব্দুল মজিদ এবং তার ছেলে জাকির হোসেন, দৌলত হোসেন, রুবেল মিয়া, ওসমান মিয়া এবং হোসেন জসিম উদ্দিনের বাড়িতে জোর করে ঢুকে গাছ পালা কেটে ফেলে। এ সময় তিনি ও তার বড় ভাই বাঁধা দিলে আবুল কাশেম তাকে কথ্য ভাষায় গালমন্দ ও চর থাপ্পর মারে। গাছ পালা কেটে নিবো এবং এতে কেউ বাধা দিলে মাটিতে পুতে ফেলা হবে বলেও হুমকি দেয় আবুল কাশেম। এছাড়া আবুল কাশেম তার হাতে থাকা রড় দিয়ে মারতে আসলে তিনি (জসিম উদ্দিন) দৌঁড়ে বাড়িতে ঢুকে যান। এ সময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে কাশেম তার লোকজনকে নিয়ে চলে যান এবং যাবার সময় তারা আবারো আসবে ও প্রাণে মারার পর লাশ বস্তায় ভরে মাটি চাঁপা দিবে বলেও হুমকি দিয়ে যান।

জসিম উদ্দিন জানান, কোর্টে মিথ্যা মামলা করলে শিবপুর থানা পুলিশ সরজমিনে তদন্ত করে এবং ঘটনার সত্যতা না পেয়ে আমাদের বাড়িতে যেন আর না আসে এই বলে আবুল কাশেম ও তার বাহিনীকে বলে যান। কিন্তু পুলিশের সামনে তারা হা বললেও পুলিশ চলে যাবার পরে আবার তারা অত্যাচার শুরু করে এবং প্রাণ নাশের হুমকি দেয়।

এই ঘটনায় স্থানীয় গণ্যমান্যদের নিয়েও সালিশ বৈঠক করা হয়। কিন্তু বৈঠকে তারা সব শর্ত মেনে নিয়েও পরের দিন আবার সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড শুরু করে। এভাবে দিনের পর দিন এই অসহায় পরবাটিকে নিমর্ম নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। এ থেকে পরিত্রাণের জন্য ভুক্তভুগী জসিম আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ চান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ