প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বগুড়ায় ভুল চিকিৎসায় এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যু

আরএইচ রফিক,বগুড়া: এবার বগুড়ায় নামসর্বস্ব একটি ক্লিনিকে একজন নামধারী ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় মারা গেল রাকিব হোসেন (১২)নামের এক স্কুল ছাত্র । এঘটনার প্রতিবাদে ওই ক্লিনিকে হামলা চালিয়েছে ক্ষুব্ধ জনতা। ঘটনার পর পর পুলিশ ক্লিনিকটিতে অভিযান চালিয়েছে। হৃদয় বিদারক ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে শহরের শেরপুর রোডস্থ ( ঘোড়াপট্রি ) এলাকার নাম সবর্স্ব ডলফিন এন্ড ডায়াগোনেষ্টিক নামের একটি ক্লিনিকে।

নিহত কিশোর রাকিব হোসেন শহরের ফুলদীঘি পূর্বপাড়া এলাকার আব্দুল আজিজ লিটনের ছেলে এবং বগুড়ার স্থানীয় একটি স্কুলে ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্র।

জানা গেছে , নিহত স্কুল ছাত্র রাকিব বুধবার সন্ধ্যার আগে তার সহ পাটিদের সাথে বাড়ীর পার্শ্বে ফুটবল খেলছিল । এর এক পর্যায়ে হঠাৎ করেই তার বাঁ পাশের তলপেটে প্রচন্ড ব্যাথা অনুভূত হয় । এক পর্যায়ে তার ব্যাথা আরো প্রচন্ড হলে তাকে প্রথমে একটি স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নিয়ে যাওয়া হয় । সেখানে পরীক্ষা নিরিক্ষা শেষে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ তাকে পরবর্তিতে অস্ত্রপচারের কথা জানান। এসময় সেখানে জনৈক দালাল ব্যাক্তি রাকিবের বাবাকে জানান , তার পরিচিত একটি ক্লিনিক আছে সেখানে ভাল চিকিৎসাও হবে, খরচও কম পড়বে।

পরে রাকিবকে তারা বাবা অশুস্থ্য ছেলেকে নিয়ে অনুমোদন বিহীন ওই ক্লিনিকে নিয়ে গেলে ডলফিন ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ জানায় ,অস্ত্রপচারের জন্য ১০হাজার টাকা লাগবে। পরে তারা আবারো ৮হাজার টাকার কথা জানালে ওই দালাল ব্যাক্তির সুপারিশে ৫হাজার টাকায় অস্ত্রপচারের জন্য হয়।

তারা জানান , একে পাল নামের একজন বিশিষ্ট ডাক্তার (যিনি কখনোই সরকারী হাসপাতালে চাকুরী করেননি )তিনি এ অস্ত্রপচার করবেন। এক পর্যায়ে রাত ৮টার দিকে তাকে অস্ত্রপচারের জন্য ৩ কক্ষ বিশিষ্ঠ নামসর্বস্ব ক্লিনিকের একটি ঘড়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় ক্লিনিকের লোকজন রাকিবের বাবা মা আত্বিয় সজনকে সেখান থেকে সরিয়ে দেন। এর প্রায় ২ঘন্টা পর সেখানে অপেক্ষারত রোগীর উৎকন্ঠিত আত্বিয় সজনদের জানানো হয় ,রোগীর অবস্থা ক্রিটিক্যাল ,তাকে অনত্র নিয়ে যান। ঘটনার পর সেখানকার ডাক্তার ষ্টাফরা সকলেই পালিয়ে যায় । এসময় সেখানে হাসপাতালের একজন নার্স ও আয়া ছাড়া কাউকে সেখানে পাওয়া যায়নি।

পরে হতভাগ্য রাকিবের নিথর দেহ নিয়ে অন্য ক্লিনিকে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এসময় তারা আরো জানান, অনেক আগেই সে মারা গেছে সে ।
এদিকে নিহতের স্বজনদের কান্নাকাটিতে গোটা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে । ঘটনার জানা জানিতে স্থানীয়দের মধ্য উত্তজনা ছড়িয়ে পড়ে । এসময় নিহতের লাশ আবারো ডলফিন ক্লিনিকে নেয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার ম্যানেজার ,নার্স কাউকে না পেয়ে ক্ষুব্ধ জনতা ক্লিনিকে চড়াও হবার চেষ্টা করলে সদর থানা পুলিশ দ্রুত সেখানে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে । শেষ খবর পর্যন্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান করছিল।

উল্লেখ্য , বগুড়া শহরের সর্বত্ব ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে উঠেছে সব নাম স্বর্বস্ব ক্লিনিক । যার অধিকাংশরই নেই কোন অনুমোদন কিম্বা লাইসেন্স। নামসর্বস্ব ওই সব ক্লিনিকে মানা হয়না কোন সরকারী নিয়মনীতি । অধিকাংশ ক্ষেত্রে ওই সব নাম সর্বস্ব ক্লিনিকে নেই কোন চিকিৎসক কিম্বা ডিপ্লোমাধারী নার্স । সেখানে নেই কোন পরিবেশ পরিচ্ছন্নতা । সেখানে প্রতিনিয়ত্ব নামধারী কতিপয় ডাক্তার নামধারীদের লেবাসে সেখানে চলে মানুষের জীবন নিয়ে ছিনি মিনিখেলা ।

অভিযোগ রয়েছে ,বগুড়ার সিভিল সার্জন ও এক শ্রেণীর নামধারী ডাক্তার নেতাদের ছত্র ছায়ায় দীর্ঘদিন যাবৎ শহরের আনাচে কানাচে নামসর্বস্ব ক্লিনিক ও ডায়াগনেষ্টিক সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হলেও এব্যাপারে দেখান যেন কেউ নেই ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত