Skip to main content

ছাত্র আন্দোলন কখনো বিফলে যায়নি

অ্যাড. নিতাই রায় চৌধুরী : যাদের স্বার্থে আঘাত লাগে, তরাই হামলা করছে শিক্ষক ও সাধারণ ছাত্রদের। এখন সরকার দেশে যাই করুক, তাদেরকে কারও কিছু বলার নাই। তাদের কোন জবাবদিহিতা নাই। বাংলাদেশের ইতিহাসে এই পর্যন্ত যতগুলো ছাত্র আন্দোলন হয়েছে বা যারা করেছে, তাদের আন্দোলন কখনো বিফলে যায়নি। তারা সবাই সফল হয়েছে। ছাত্র সমাজের আন্দোলন কেউ দাবিয়ে রাখতে পারেনি আর পারবেও না। আজ হোক, কাল হোক তাদের দাবি লক্ষে পৌঁছাবে। এটা আমার বিশ্বাস। অতিতেও দেখা গেছে, যত সরকারই ছিলো, তারা সবাই ছাত্রদের আন্দোলনের বিরুদ্ধে ছিলো। শেষ পর্যন্ত ছাত্ররাই সফল হয়েছে। সময়ের কারণে কখনো কখনো দুর্গতি, চাপ, নির্যাতনও থাকে। ছাত্ররা তাদের লক্ষ্যে অটুট থাকে। আমি বিশ্বাস করি, ছাত্রদের যে যৌক্তিক দাবি সেই যৌক্তিক দাবি এখনি না হলেও একদিন প্রতিষ্ঠিত হবে। কোটা সংস্কার আন্দোলনটা হচ্ছে, বাংলাদেশের মেধাবীরাই এর সাথে সম্পৃক্ত এবং এটি তাদের যৌক্তিক একটি দাবি। এর কারণ হিসেবে আমি বলবো যে, যারা এ আন্দোলনের মূল নেতা, তাদের উপর ছাত্রলীগ এক ধরণের অমানবিক নির্যাতন চালিয়েছে। অন্যদিকে রাশেদকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে কিন্তু নূরুর উপর যারা হামলা করেছে, তাদের কাউকেই গ্রেপ্তার না করে, আহতরা চিকিৎসা নিতে গেলে তাদেরকে চিকিৎসা নিতে দিচ্ছে না বরং তাদেরকে হাসপাতাল থেকে বের করে দিচ্ছে। রাজশাহীতে তরিকুলকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে পা এবং মেরুদন্ড ভেঙ্গে দিলো। এই রকম একটি অবস্থার মধ্যে সুশীল সমাজও ছাত্রদের এ আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছে এবং অন্যায়ভাবে আন্দোলনকারীদের উপর যে নিপীড়ন হচ্ছে তার প্রতিবাদ জানিয়েছে। যাদের স্বার্থে আঘাত লাগে তারাই হামলা করছে শিক্ষক ও সাধারণ ছাত্রদের। কোটা সংস্কার একটি যৌক্তিক দাবি। কারণ, আওয়ামী লীগ যে বাংলাদেশের মানুষের ভোটাধিকার হরণ করেছে, তা ফেরত আনার যে আন্দোলন, সেই আন্দোলন করছে বিএনপি এবং হাজারো মেধাবী শিক্ষার্থী আজ তাদের ন্যায্য দাবি আদায়ের আন্দোলনে শামিল হয়েছে।  আমি আশা করি, যারা হামলা করেছে তাদের কঠোর শাস্তি প্রদান করা হোক। তাদেরকে আইনের আওতায় এনে একদিন বিচার করা হবে। পরিচিতি : ভাইস চেয়ারম্যান, বিএনপি/ মতামত গ্রহণ : নৌশিন আহম্মেদ মনিরা/ সম্পাদনা: মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

অন্যান্য সংবাদ