প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বেপরোয়া পুলিশের সোর্সরা, অতিষ্ট ব্যবসায়ী-নিরীহ মানুষ

ইসমাঈল হুসাইন ইমু : রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের সোর্সদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে পড়ছে ব্যবসায়ী ও নিরীহ মানুষ। প্রায় প্রতিদিনিই কোন না কোন থানা এলাকায় সাধারণ মানুষকে আটকের ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিচ্ছে এই সোর্সরা।

নিউমার্কেট এলাকার কয়েকজন ব্যবসায়ী অভিযোগ করেছেন, এসআই স্বপন কান্তির তিনজন সোর্স রয়েছে। এরা হলেন, রাশেদ, সম্রাট ও রানা। এরা থানা এলাকা থেকে অবৈধ ব্যবসায়ী ও ফুটপাত এবং মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সাপ্তাহিক ও মাসিক টাকা আদায় করছে। এসব অসৎ ব্যক্তিরা তাকে টাকা দিতে বাধ্য। নির্দিষ্ট সময়ে টাকা না দিলে আবার তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। এদের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসারও অভিযোগ রয়েছে।

এস আই স্বপন কান্তি বিমানবন্দর থানার একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে সৈকত পালের পুরোচনায় এক যুবলীগ নেতাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। কোনো কারণ ছাড়াই ওই যুবলীগ নেতার কাছে ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। চাঁদা না দেয়ার কারণে নিউ মার্কেট থানায় একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়।

শেরে বাংলা নগর, তেজগাঁও এলাকায় মজনু নামের এক সোর্স দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। দাবিকৃত টাকা না পেলেই নিরীহ মানুষকে পুলিশের কাছে মাদক ব্যবসায়ী বানিয়ে হয়রানী করে থাকে। এছাড়া ব্যবসায়ীদের ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা আদায় তার অন্যতম কাজ বলে জানা গেছে।

তেজগাঁও শিল্প এলাকার শাহিন নামের এক সোর্স দীর্ঘদিন ধরে সাধারন মানুষকে হয়রানী করে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে। শাহিনের বিরুদ্ধে থানা পুলিশের কাছে অভিযোগ করেও কোন সুরাহা হয়নি। রামপুরা এলাকার মানিক, মহাখালী এলাকার রিপন ওরফে গাঁজা রিপন, যাত্রাবাড়ী এলাকার বাবু ওরফে পিনিক বাবু নামের সোর্সের হয়রানীর অবিযোগ দীর্ঘদিনের।

এ বিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, তাদের কাজের সুবিধার্থে সোর্স নিয়োগ দিয়ে থাকেন। তাদের সোর্স মানিও দেয়া হয়। কিন্তু এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অনেক সোর্স অপরাধে জড়িে পড়ে অনেক সময় মাদক কারবার ও বিভিন্ন অপরাধে জাড়নোর অভিযোগে এদের গ্রেফতারও করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ